বন্ডের বিপরীতে সমন্বিত বিনিয়োগের ঊর্ধ্বসীমা এক কোটি টাকা নির্ধারণের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করে তা আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেওয়ার দাবি জানিয়েছে এনআরবি সিআইপি অ্যাসোসিয়েশন। একই সঙ্গে বিমান বাংলাদেশে প্রবাসীদের মরদেহ বিনামূল্যে বহন করার সুবিধা পুনঃপ্রবর্তন এবং লেবাননে অবৈধ হয়ে থাকা অসহায় বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনতে স্বল্পমূল্যে বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছে সংগঠনটি।

বুধবার রাজধানীর রেনেসাঁ ঢাকা গুলশান হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবির কথা জানান এনআরবি সিআইপি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান। এতে আরো বক্তব্য দেন সংগঠনের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি থাতেইয়ামা কবির, সাধারণ সম্পাদক কাজী সারোয়ার হাবীব, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ ইয়াছিন চৌধুরী এবং অর্থ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুর রহমান।

লিখিত বক্তব্যে মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান বলেন, আমাদের জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ প্রবাসী বাংলাদেশিদের মরদেহ দেশে আনতে বিনামূল্যে বহনের ক্ষেত্রে করোনাকালে আগেই স্থগিত ঘোষণা করেছে, যা এখনো কার্যকর রয়েছে। অথচ দীর্ঘদিন চালু থাকা বিনামূল্যে মরদেহ বহনের এ ব্যবস্থাটি কম আয়ের অসহায় প্রবাসীদের জন্য বড় সহায়ক শক্তি ছিল। বর্তমানে সুযোগটি তুলে নেওয়ায় মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কম আয়ের প্রবাসী ভাই-বোনের অনেক মরদেহ জমা পড়ে আছে, যেগুলো আর্থিক সামর্থ্যের অভাবে দেশে পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় আগের মতো বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে প্রবাসীদের মরদেহ বিনামূল্যে বহন করার সুবিধা পুনঃপ্রবর্তনের বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার আবেদন রাখছি।

তিনি বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার ওয়েজ আর্নাস ডেভেলপমেন্ট বন্ড, ইউএস ডলার প্রিমিয়াম বন্ড এবং ইউএস ডলার ইনভেস্টমেন্ট বন্ডের বিপরীতে সমন্বিত বিনিয়োগের ঊর্ধ্বসীমা এক কোটি টাকার সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা নির্ধারণ করেছে। যার ফলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে ব্যাপক উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। বিদেশে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা বন্ড বিধির আলোকে ১৯৮১ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ৪০ বছরে বন্ডে প্রায় ১৬ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। প্রবাসীরা তাদের কষ্টার্জিত সঞ্চয় থেকে বাংলাদেশে নিশ্চিত বিনিয়োগ মনে করে বন্ড ক্রয় করেন এবং তারা বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন না বিধায় বন্ডকে অধিকতর সুরক্ষিত বিনিয়োগ মনে করে থাকেন। সরকারি বন্ডে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কোনো বাধা-নিষেধ না থাকায় প্রবাসীরা বৈধ পথে নিজ নিজ প্রবাসে উচ্চহারে কর প্রদানের মাধ্যমেই এ অর্থ বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে আসছেন। এ অবস্থায় সরকারের ওপরে উল্লিখিত সিদ্ধান্তের ফলে বিনিয়োগকৃত অর্থ বিদেশে ফিরিয়ে নেওয়ার আশঙ্কা দেখা দিতে পারে, যা বাংলাদেশের বৈদেশিক রিজার্ভের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। কারণ বন্ডে বিনিয়োগকৃত মূল অর্থ যেকোনো সময় বিদেশে প্রত্যাবর্তনযোগ্য হিসেবে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করা হয়ে থাকে। এ ছাড়া এই সিদ্ধান্তের ফলে প্রবাসীরা যেমন ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, তেমনি তাদের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হওয়ায় দেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আস্থা হারিয়ে ফেলবেন। এতে দেশে বৈদেশিক আয়ের প্রধান উৎস রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় প্রেরণে এবং অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব ফেলবে।

মাহতাবুর রহমান বলেন, 'আমরা আরো মনে করি, এভাবে বন্ডে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ঊর্ধ্বসীমা নির্ধারণ করে তা যদি বাধাপ্রাপ্ত করা হয় তবে দেশে অবৈধ পথে অর্থ প্রেরণের প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে, যা আমাদের বৈদেশিক মুদ্রা আয় এবং বৈদেশিক রিজার্ভের ক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায় হিসেবে দেখা দেবে। বৈদেশিক বিনিয়োগের হার কমার পাশাপাশি বৈদেশিক রিজার্ভও কমে যাবে। তাই বন্ডের বিপরীতে সমন্বিত বিনিয়োগের ঊর্ধ্বসীমা এক কোটি টাকা নির্ধারণের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনাপূর্বক তা আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেওয়ার আবেদন জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, লেবাননে আনুমানিক দেড় লাখ প্রবাসী বাংলাদেশির মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার কাগজপত্রবিহীন (অবৈধ) রয়েছেন। দেশটি প্রায় দেড় বছর ধরে চলমান অর্থনৈতিক মন্দা, ডলারের বিপরীতে স্থানীয় মুদ্রার সীমাহীন দরপতন এবং সাম্প্রতিক করোনা পরিস্থিতিতে পড়ে বর্তমানে বৈধ বাংলাদেশিরা যেখানে দুঃসহ সময় পার করছেন, সেখানে অবৈধ হয়ে যাওয়া বাংলাদেশিদের অবস্থা আরো করুণ। দেশে পরিবারের জন্য টাকা পাঠানো তো দূরের কথা, প্রবাসে নিজেদের পেট চালানোই দায় হয়েছে পড়েছে এসব অসহায় বাংলাদেশির। লেবাননে সরকারের দেওয়া সাধারণ ক্ষমার সুযোগে বাংলাদেশ দূতাবাসের বিশেষ কর্মসূচির আওতায় গত ২৫-২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে কাগজপত্রবিহীন (অবৈধ) বাংলাদেশিদের নাম নিবন্ধন চললেও চার দিনে মাত্র চার হাজার বাংলাদেশি বিমান টিকিটের ৪০০ ডলারের বিনিময়ে নাম নিবন্ধন করতে সক্ষম হন। নিবন্ধনকৃতদের অনেকেই জানিয়েছেন, তারা বাংলাদেশ থেকে দেনা করে কিংবা ফসলি জমি বিক্রি করে টিকিটের টাকার বিনিময়ে নাম নিবন্ধন করেছেন। ধারণা করা হয়েছিল, আনুমানিক ২০ হাজার অবৈধ হয়ে যাওয়া বাংলাদেশি নাম নিবন্ধন করবেন। কিন্তু বিমান টিকিটের ৪০০ ডলার হাতে না থাকায় বা সংগ্রহ করতে না পারায় তারা নাম নিবন্ধন করতে পারেননি। এই ব্যাপারে দেশে যেতে ইচ্ছুক লেবাননের ভুক্তভোগী প্রবাসী বাংলাদেশিরা সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এই বাস্তবতায় ও মানবিক বিবেচনায় লেবাননে সাধারণ ক্ষমার আওতায় নিবন্ধিত কাগজপত্রবিহীন বা অবৈধ হয়ে যাওয়া প্রবাসীদের বিমান বাংলাদেশের বিশেষ ফ্লাইটে স্বল্পমূল্যে দেশে ফিরে আসার সুযোগ করে দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করেন এনআরবি সিআইপি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি।