ভালোবাসা দিবসে ৪০০ সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের রেস্তোরাঁয় খাবার ও তাদের উপহার সামগ্রী দিয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) ও সামাজিক সংগঠন যাত্রী ছাউনি। রোববার দুপুরে নগরের বারকোড রেস্টুরেন্টে এ আয়োজন করা হয়।

সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান বিন্দু পাঠশালা, প্রচেষ্টা স্কুল, আল হেরা ইসলামিক ইনস্টিটিউট, স্বপ্নের স্কুল, ছিন্নমূল কুরআন মাদ্রাসা, নগরফুল, মিনহাজ উল কুরআন মাদ্রাসা, অধিকার বঞ্চিত শিশু একাডেমি ও আধারের আলো স্কুলের শিক্ষার্থীরা এতে অংশ নেন। অনুষ্ঠানে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা নাচ-গান এবং বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উদযাপন করেন। এ দিন দুপুরের খাবারের পাশাপাশি প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে চকলেট, স্কুল ব্যাগসহ বিভিন্ন শিক্ষা সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। এ সময় নগর পুলিশের উপ কমিশনার বিজয় বসাক উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সেবা নিতে আসা লোকজন, পথচারী ও থানা এলাকায় বিভিন্ন কার্যালয়ে গোলাপ ফুল ও চকলেট বিতরণের মধ্যে দিয়ে ভালোবাসা দিবস উদযাপন করেছে ডবলমুরিং থানা পুলিশ। থানার চারটি পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে এ দিনভর এ কর্মসূচি পালন করে তারা। পুলিশের গোলাপ ফুল বিতরণের বিষয়টি নগরবাসীর নজর কেড়েছে।

ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘ভালোবাসা দিবস ভালোবাসার মানুষের জন্য। নাগরিকরা, আগত সেবাপ্রার্থীরা আমাদের ভালোবাসার মানুষ। তাই তাদের সাথেই দিনটি উদযাপন করেছি। ছোট ছোট এসব উদ্যোগ মানুষের কাছে পুলিশকে আরও আস্থাশীল করে তুলবে বলেই বিশ্বাস করি।’

ডবলমুরিং থানা পুলিশ জানায়, ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে থানায় আগত প্রত্যেক সেবাপ্রার্থীকেই লাল গোলাপ দিয়ে স্বাগত জানানো হয়। কাজ শেষে ফেরার সময় আবার চকলেট দিয়ে বিদায় জানানো হয়। ব্যতিক্রমী এমন আয়োজনে খুশী সেবাপ্রার্থীরাও। এমন আয়োজন মানুষের মনের পুলিশ ভীতি কাটাতে সহায়ক হবে বলে মনে করছেন তারা।

থানায় জিডি করতে আসা সিদরাতুন মুনতাহা বলেন, ‘পুলিশ সম্পর্কে এক ধরনের নেতিবাচক ধারণা আছে আমাদের। কিন্তু সুন্দর এই আয়োজন আমাদের সেই ধারণাকে ভুল প্রমাণ করেছে।’