ঈদের ছুটির আগে টানা বেশ কিছুদিন ঊর্ধ্বমুখী ধারা ছিল শেয়ারবাজারে। তিন দিনের ছুটির পর রোববার সপ্তাহের প্রথম কার্যদবিসেও ঊর্ধ্বমুখী ধারা ছিল শেয়ারবাজারের লেনদেন। এদিন যথারীতি সকাল ১০টায় শুরু হয়ে লেনদেন চলে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত। তবে ক্লোজিং সেশনেও ১০ মিনিট শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

ছুটির আমেজ না কাটলেও শেয়ার লেনদেনে রোববার তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি। সাড়ে তিন ঘণ্টায় প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইতে ১ হাজার ৪০২ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। ক্লোজিং সেশনের লেনদেন মিলে তা ১ হাজার ৪১৭ কোটি ৭৩ টাকা ছাড়িয়েছে। দ্বিতীয় শেয়ারবাজার সিএসইতে কেনাবেচা হয়েছে ৭১ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার।

সার্বিক হিসাবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ২৩৫টি শেয়ারের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৮৬টি শেয়ার দর হারিয়েছে। অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৭টি শেয়ারের দর।

অধিকাংশ শেয়ারের দরবৃদ্ধি পাওয়ায় ডিএসইএক্স সূচক ৬৬ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৮১৭ পয়েন্টে উঠেছে। সূচক বৃদ্ধির হার ১ দশমিক ১৫ শতাংশ।

দ্বিতীয় শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ১৯১টি শেয়ারের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৬৯টি শেয়ার দর হারিয়ে কেনাবেচা হয়েছে, অপরিবর্তিত ৩২টির দর। 

খাতওয়ারি লেনদেন পর্যালোচনায় দেখা গেছে, বীমা ছাড়া আজ অন্য সব খাতের অধিকাংশ শেয়ারের দর বেড়েছে। বড় খাতগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে বস্ত্র খাতের। এ খাতের ৫৬ কোম্পানির মধ্যে ৫টির দর কমার পরও গড়ে ৩ দশমিক ৬৪ শতাংশ হারে দর বেড়েছে।

অপেক্ষাকৃত ছোট খাতের মধ্যে সেবা ও নির্মাণ খাতের শেয়ারদর বেড়েছে সবচেয়ে বেশি। এ খাতের লেনদেন হওয়া ৪ কোম্পানির সবগুলোর দরবৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে পুরো খাতের গড় দরবৃদ্ধি পেয়েছে ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

এছাড়া ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের শেয়ারদর গড়ে ৪ দশমিক ৪০ শতাংশ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের ৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের ২ দশমিক ৭৮ শতাংশ, ব্যাংক খাতের ১ দশমিক ৬৬ শতাংশ, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের ১ দশমিক ১৩ শতাংশ দরবৃদ্ধি ছিল উল্লেখযোগ্য।

বিপরীতে বীমা খাতের ৫০টি কোম্পানির মধ্যে ৩৫টির দর কমেছে, বেড়েছে ১১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪টির দর। এতে সার্বিকভাবে এ খাতের শেয়ারদর কমেছে দশমিক ৫৪ শতাংশ।

ডিএসইতে রোববার ৯ থেকে ১০ শতাংশ দর বেড়েছে ২২টি শেয়ারের। ৫ শতাংশের ওপর দর বেড়েছে ৭৭টির, যার বড় অংশই বস্ত্র খাতের শেয়ার।

দরবৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করা এসব শেয়ার হলো- এডভেন্ট ফার্মা, নূরানী ডাইং, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ, তুংহাই নিটিং, ইনডেক্স এগ্রো, বিডি ওয়েল্ডিং, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ, জেনেক্স ইনফোসিস, কেয়া কসমেটিক্স, মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক, সায়হাম টেক্সটাইল, জেনারেশন নেক্সট, এনআরবিসি ব্যাংক, রিং শাইন টেক্সটাইল, সাইফ পাওয়ার, ডেল্টা স্পিনার্স, হামিদ ফেব্রিক্স, আলিফ ম্যানুফ্যাকচারিং, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং, ইউনিয়ন ক্যাপিটাল, ফার্স্ট ফাইন্যান্স এবং প্রাইম ব্যাংক।

বিপরীতে ৪ শতাংশ দর হারিয়ে দরপতনের শীর্ষে ছিল মালেক স্পিনিং। ৩ শতাংশের ওপর দর হারিয়ে এর পরের অবস্থানে ছিল মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স, ইসলামিক ইন্স্যুরেন্স, কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স, হেইডেলবার্গ সিমেন্ট।

বরাবরের মত বেক্সিমকো লিমিটেড ছিল লেনদেনের শীর্ষে। রোববার এ কোম্পানির ৮৩ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। তবে শেয়ার প্রতি দেড় টাকা দর হারিয়ে সর্বশেষ কেনাবেচা হয়েছে ৮৬ টাকায়।