টানা আটদিন বৃদ্ধির মঙ্গলবার কমেছে দেশের শেয়ারবাজারের প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সূচকটি ১০ পয়েন্ট হারিয়ে ৫৮২৯ পয়েন্টে নেমেছে।

অবশ্য এর আগে সোমবার ২৬ পয়েন্টসহ পরপর আট কার্যদিবসে ডিএসইএক্স ৩২৮ পয়েন্ট বেড়ে ৫৮৪০ পয়েন্ট হয়। সূচকের এ অবস্থান ছিল গত ১৭ জানুয়ারির পর বা চার মাসে সর্বোচ্চ।

বাজার সংশ্লিষ্টরা জানান, বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমার কারণে সূচক কমেছে। টানা দরবৃদ্ধির যেসব শেয়ারের ভালো দাম বেড়েছে, সেগুলো বিক্রি করে বিনিয়োগকারীরা মুনাফা নিচ্ছেন- লেনদেনের ধারা দেখে এমনটাই মনে হয়েছে। মূলত শেয়ার বিক্রির চাপে বেশিরভাগ শেয়ার দর হারিয়েছে, তাতে সূচকও কমেছে। তবে শেয়ারদর ও সূচক হ্রাসের হার সামান্যই।

লেনদেন পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, বেশিরভাগ শেয়ার দর হারালেও ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো, বেক্সিমকো ফার্মা, প্রাইম ব্যাংক, রেনেটার দর বেড়েছে। 

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় স্বাভাবিক লেনদেন শুরুর প্রথম মিনিটে সূচক আগের দিনের তুলনায় ২২ পয়েন্ট বেড়ে ৫৮৬২ পয়েন্ট ছাড়ায়। এরপরই বেশিরভাগ শেয়ার দর হারাতে শুরু করলে ডিএসইএক্স সূচক ক্রমাগত কমতে থাকে। ১০টা ৪৮ মিনিটে সূচকটি দিনের সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে ৫৬ পয়েন্ট এবং আগের দিনের তুলনায় ৩৪ পয়েন্ট হারিয়ে ৫৮০৬ পয়েন্টে নামে।

আটদিন পর সূচক কমলেও বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমার ধারা সোমবারই শুরু হয়, যা মঙ্গলবারও ছিল। দিনের লেনদেন শেষে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ডিএসইতে ১০৩ শেয়ারের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ২১৫টি শেয়ার দর হারিয়েছে। অপরিবর্তিত ছিল ৪৭ শেয়ারের দর। দ্বিতীয় শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৯২ শেয়ারের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ১৬৯টি দর কমেছে, অপরিবর্তিত ছিল ২৮টির দর।

খাতওয়ারি লেনদেন পর্যালোচনায় দেখা গেছে, বীমা ছাড়া মঙ্গলবার অন্য সব খাতের বেশিরভাগ শেয়ারের বাজারদর কমেছে। বীমা খাতের ৫০ শেয়ারের মধ্যে দর বেড়েছে ৩৪টির, কমেছে ১৩টির এবং বাকি ৩টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

ব্যাংক খাতের ৩১ কোম্পানির মধ্যে ২৪টি এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের লেনদেন হওয়া ২২ শেয়ারের মধ্যে ২০টিই দর হারিয়েছে।

এছাড়া প্রকৌশল খাতের লেনদেন হওয়া ৪০ কোম্পানির মধ্যে দর হারিয়েছে ২৫টির, বেড়েছে ৯টির। ওষুধ ও রসায়ন খাতের লেনদেন হওয়া ৩০ কোম্পানির মধ্যে ৫টির দর বেড়েছে, কমেছে ২১টির। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের ৫ শেয়ারের দর বেড়েছে, কমেছে ১৬টির। বস্ত্র খাতের ৫৬ কোম্পানির মধ্যে মঙ্গলবার ১৯টির দর বেড়েছে, কমেছে ৩০টির।

ডিএসইতে স্বাভাবিক সাড়ে তিন ঘণ্টার লেনদেনে মঙ্গলবার এক হাজার ৬৯৬ কোটি ৭৯ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। দুপুর দেড়টার পর ক্লোজিং সেশনের ১০ মিনিটের আরও সাড়ে ২০ কোটি টাকার লেনদেনসহ ডিএসইর লেনদেন এক হাজার ৭১৭ কোটি ৩১ লাখ টাকায় উন্নীত হয়। এ লেনদেন গত ৫ জানুয়ারির পর সর্বোচ্চ। ওইদিন ঢাকার শেয়ারবাজারে ২ হাজার ৫৪৬ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছিল। সিএসইতে মঙ্গলবার কেনাবেচা হয় ৬০ কোটি ৭৪ টাকার শেয়ার।

মন্তব্য করুন