ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া ডেভিড শ্যারন পরিচালিত  ফরাসি সিনেমা ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’- তে  বাংলাদেশের পোশাক শিল্প নিয়ে ‘অবমাননাকর’ সংলাপের বিষয়ে আপত্তি তুলে তা প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছে পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ।

রোববার বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান নেটফ্লিক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা থিওডোর অ্যান্থনি সারান্ডোসকে একটি চিঠি দিয়েছেন। 

ডেভিড শ্যারন পরিচালিত ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’ সিনেমাটি নেটফ্লিক্সে মুক্তি পায় গত ৩০ জুলাই।  সিনেমার একটি সংলাপের ইংরেজি সাবটাইটেল ছিল এরকম- ‘ইয়েস, বুলেটপ্রুফ টাক্সেডো, মেইড ইন ফ্রান্স। আই উড বি ডেড ইফ ইট ওয়্যার বাংলাদেশ।’ বাংলায় এর মানে দাঁড়ায়, “হ্যাঁ, এটা বুলেটপ্রুফ টাক্সেডো, ফ্রান্সে তৈরি। এটা বাংলাদেশে হয়ে থাকলে হয়ত মরেই যেতাম।”

বিজিএমইএ সভাপতি তার চিঠিতে বলেন, ‘আমরা আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই, গত ৩০ জুলাই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া ফরাসি সিনেমা ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’তে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প নিয়ে অসম্মানজক ও অবমাননাকর মন্তব্য করা হয়েছে। এই ধরণের মন্তব্য বাংলাদেশের গার্মেন্টস সেক্টরে কর্মরত ৪০ লাখ শ্রমিকের নিবেদন, বাংলাদেশের উৎপাদনের মান নিয়ে অবজ্ঞা করছে।’

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, সিনেমার সংলাপের মাধ্যমে শুধু বাংলাদেশের গার্মেন্টস সেক্টর, পণ্য বা তাদের আন্তর্জাতিক সহযোগীদেরই অপমান করা হয়নি; একইসঙ্গে অপমান করা হয়েছে তাদের যাদের ওয়ারড্রোবে বাংলাদেশে তৈরি পোশাক রয়েছে বা যারা বাংলাদেশের পোশাক পরতে ভালোবাসেন।

চিঠিতে বলা হয়, “বিজিএমইএ বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানিকারকদের পক্ষ থেকে এই ধরনের মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। আমি এ বিষয়ে অতি দ্রুত আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। অবমাননাকর বক্তব্যগুলো সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।”

সংলাপটি সরিয়ে নেওয়ার আগ পর্যন্ত সিনেমাটির প্রচার বন্ধ রাখারও আহ্বান জানানো হয়েছে চিঠিতে।

নেটফ্লিক্সের পাশাপাশি পরিচালক ডেভিড শ্যারন, ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত, ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূতকেও চিঠির অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।