বৈধ মানিচেঞ্জারের হালনাগাদ তালিকা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগের তালিকায় নাম থাকা ৮টি প্রতিষ্ঠান নতুন তালিকা থেকে বাদ পড়েছে।

সর্বশেষ ২০১৯ সালে প্রকাশিত তালিকায় নাম ছিলো না এরকম পাঁচটি যুক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে ২৩৫টি বৈধ মানিচেঞ্জারের তালিকা সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংক মোট ৬০২টি মানিচেঞ্জারের লাইসেন্স দিলেও সময় মতো নবায়ন না করা কিংবা অনিয়মে জড়িয়ে পড়ায় বেশিরভাগই অনুমোদন হারিয়েছে।

ব্যাংকের পাশাপাশি নগদ ডলার বেচা-কেনা করে মানিচেঞ্জারগুলো। বাংলাদেশ ব্যাংকের লাইসেন্স নিয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম চালাতে হয়। নিয়ম অনুযায়ী, যে ঠিকানায় মানিচেঞ্জারের লাইসেন্স দেওয়া বা নবায়ন হবে শুধু সেখানেই ব্যবসা করার কথা। আবার মানিচেঞ্জারের কোনো শাখা খোলার সুযোগ নেই। তবে অনেক ক্ষেত্রে এসব নিয়ম অমান্য করে লেনদেন করাসহ বিভিন্ন অনিয়মে জড়িয়ে পড়ায় অনেক প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল হয়েছে।

নতুন বাদ পড়া ৮ প্রতিষ্ঠান হলো- ঢাকার শেরাটন হোটেলের অমনি ব্যুরো দ্য চেঞ্জ, মতিঝিল বিসিআইসি সদনের এ জে মানিচেঞ্জার, নয়াপল্টনের অরচ্যার্ড মানি এক্সচেঞ্জ, দিলকুশার সোনার বাংলা, বনানী সুপার মার্কেটের এপেল মানি এক্সচেঞ্জ, মোহাম্মদপুর আল্লাহ করিম জামে মসজিদ সুপার মার্কেটের বি আর মানেচেঞ্জার, চট্রগ্রামের কোতয়ালী ডাইনেষ্টি মানি এক্সচেঞ্জ ও সিলেটের আম্বরখানার সুরমা সুপার মার্কেটের আলী মানি এক্সচেঞ্জ।