দাম বাড়ানোর পরও বাজারে নির্ধারিত দামে পাওয়া যাচ্ছে না খোলা সয়াবিন ও পাম তেল। প্রতি লিটারে ১৫ থেকে ২০ টাকা বেশি দাম নিচ্ছেন খুচরা বিক্রেতারা। তবে বোতলজাত সয়াবিন তেল নির্ধারিত দরে পাওয়া যাচ্ছে। মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক করে ভোজ্যতেল পরিশোধন কোম্পানিগুলোর সমিতি। বৈঠকে দাম বাড়িয়ে খুচরা পর্যায়ে প্রতি লিটার খোলা সয়াবিনের দর ১৩৬ টাকা ও পামওয়েল ১১৮ টাকা এবং বোতলজাত সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১৬০ টাকা এবং পাঁচ লিটারের দর নির্ধারণ করা হয় ৭৬০ টাকা।

কিন্তু বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, কাঁঠালবাগান ও তেজগাঁওয়ের কলোনি বাজারসহ কয়েকটি বাজারে দেখা যায়, প্রতি লিটার লুজ বা খোলা সয়াবিন তেল ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা এবং পামঅয়েল ১৩৮ থেকে ১৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বোতলজাত সয়াবিন নির্ধারিত দরে বিক্রি হচ্ছে। কিছু কিছু জায়গায় আগের দরেই অর্থাৎ ১৫৩ টাকায়ও পাওয়া যাচ্ছে। 

নির্ধারিত দরের চেয়ে খোলা সয়াবিনের দাম বেশি কেন জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের একজন ব্যবসায়ী সমকালকে বলেন, যে দর নির্ধারণ করা হয়েছে, কোনো পাইকারের কাছে সেই দরে তেল পাওয়া যাচ্ছে না। এর চেয়ে বেশি দর দিয়ে কিনতে হয়। এ ছাড়া খোলা তেলে ঘাটতি থাকে। এ কারণে খুচরায় বেশি দরে বেচতে হয়।

প্রায় একই ধরনের অভিযোগ পাইকারদেরও। বাংলাদেশ পাইকারি ভোজ্যতেল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম সমকালকে বলেন, নির্ধারিত প্রতি লিটার ১৩৪ টাকা দরে কোনো মিলগেটে তেল পাওয়া যাচ্ছে না। তবে খুচরা ব্যবসায়ীরা বাড়তি টাকা নিচ্ছেন। 


বিষয় : খোলা সয়াবিন পাম তেল খুচরা বিক্রেতা

মন্তব্য করুন