দুই ডোজ টিকা নেয়ার পরও চাঁদপুর নার্সিং ইনস্টিটিউটের ৫২ জন ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে তারা নার্সিং ইনস্টিটিউটের ছাত্রী নিবাসে হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বুধবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহাদাত হোসেন।

তিনি বলেন, গত দু’ দিনে নার্সিং ইনস্টিটিউটের ১৮৬ জন শিক্ষার্থীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৫২ জনের রিপোর্ট পজেটিভ আসে। বর্তমানে তারা ইনস্টিটিউটের হোস্টেলে হোম আইসোলেশনে আছে। আমি নিজে গিয়ে তাদের দেখে এসেছি। তারা ভালো আছে। তাদের সবার জন্য ওষুধ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, যার যার অবস্থান থেকে সবাইকে সচেতন হতে হবে। অবশ্যই মাস্ক পড়তে হবে।

চাঁদপুর নার্সিং ইনস্টিটিউটের ইনচার্জ সেলিনা আক্তার বলেন, শিক্ষার্থীরা প্র্যাকটিক্যাল করে, সে কারণে হাসপাতালের ওয়ার্ডে ডিউটি এবং টিকাদান কার্যক্রমেও ডিউটি করেছে। সবারই দুই ডোজ করে টিকা দেয়া আছে। তারপরও তারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

তিনি জানান, প্রথম দু’দিনে ১০ জন করে ২০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ১৩ জনের নমুনা পজেটিভ আসে। এরপর অন্য সব শিক্ষার্থীদের নমুনা পরীক্ষা করে মোট ৫২ জনের রিপোর্ট পজেটিভ আসে। তারা ইনস্টিটিউটের দোতলার ৭টি রুমে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ডাক্তাররা এসে সবার সাথে কথা বলে পরামর্শ দিয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে দু’একজনের কিছু সমস্যা দেখা যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, আমরা সবাই টাকা দিয়ে  কিছু ফল এনেছি। প্রয়োজনীয় সব ওষুধ হাসপাতালে না থাকায় কিছু ওষুধও কিনেছি।

এদিকে, একসাথে একটি ইনস্টিটিউটের এত শিক্ষার্থী আক্রান্ত হওয়ায়  নার্সিং ইনস্টিটিউট এবং ২৫০ শয্যা হাসপাতাল এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

উল্লেখ্য, চাঁদপুরে গত এক সপ্তাহ ধরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। চাঁদপুরে পরীক্ষা করা নমুনার মধ্যে প্রায় ২৪ শতাংশ পজেটিভ এসেছে। জানা গেছে, আক্রান্তদের মধ্যে প্রাইমারী শিক্ষকদের সংখ্যাও অনেক।