তৈরি পোশাক পণ্যে বৈচিত্র্য আনার সরকারি প্রচেষ্টা বাস্তবায়নে সব ধরনের ম্যানমেইড ফাইবার বা কৃত্রিম আঁশ আমদানিতে শুল্ক্কমুক্ত সুবিধা চেয়েছে বস্ত্রকল মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশেন (বিটিএমএ)।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তাদের সঙ্গে বস্ত্র খাত-সংক্রান্ত প্রাক-বাজেট আলোচনায় বিটিএমএর পক্ষ থেকে এ রকম আরও কিছু প্রস্তাব ও দাবি তুলে ধরা হয়। গতকাল বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রাজস্ব ভবনে অনুষ্ঠিত আলোচনায় এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম, শুল্ক্কনীতি বিভাগের সদস্য মাসুদ সাদিক, ভ্যাটনীতি বিভাগের সদস্য জাকিয়া সুলতানা, আয়কর নীতি বিভাগের সদস্য সামস উদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। বিটিএমএর পক্ষে নেতৃত্ব দেন সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন। সংগঠনের অন্য নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ম্যানমেইড ফাইবারের মধ্যে রয়েছে পলিয়েস্টার স্ট্যাপল ফাইবার, ভিসকস স্ট্যাপল ফাইবার, ফ্লাক্স ফাইবার ইত্যাদি। বর্তমানে রেয়াতি হারে শুল্ক্ক দিয়ে এসব ফাইবার আমদানি করতে হয়। বিটিএমএর যুক্তি, বিশ্ব বাজারে এখন ম্যানমেইড ফাইবারের উচ্চ চাহিদা। এ কারণে ব্র্যান্ড এবং ক্রেতারা পোশাক উৎপাদনে এ ধরনের ফাইবার ব্যবহারের শর্ত জুড়ে দেন। শুল্ক্ক দিয়ে আমদানি করার কারণে পণ্যের দর বেশি পড়ে। নতুন পণ্য এবং নতুন বাজার সৃষ্টিও কঠিন হয়ে পড়ে। তাই বিভিন্ন ধরনের ম্যানমেইড ফাইবার আমদানি সম্পূর্ণ শুল্ক্কমুক্ত করার দাবি জানানো হয়েছে বিটিএমএর পক্ষ থেকে।

শুল্ক্ককর-সংক্রান্ত বিটিএমএর অন্য দাবির মধ্যে রয়েছে- যন্ত্রাংশ আমদানিও ১ শতাংশ শুল্ক্ক দিয়ে আমদানির সুযোগ দেওয়া। বর্তমানে কোনো কোনো যন্ত্রাংশের ক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ পর্যন্ত শুল্ক্ক ধার্য রয়েছে।

আয়কর-সংক্রান্ত প্রস্তাবে বিটিএমএ সদস্য কারখানার আয়কর বর্তমানের ১৫ শতাংশ হারে ২০৩০ সাল পর্যন্ত বহাল রাখার কথা বলা হয়েছে। এ ছাড়া তুলা ক্রয়ে মূল্য পরিশোধের ক্ষেত্রে ২ শতাংশ কর কর্তনের বর্তমান বিধান প্রত্যাহার করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ভ্যাট-সংক্রান্ত প্রস্তাবে বিটিএমএ স্থানীয় বাজারে ম্যানমেইড ফাইবারের সুতা বিক্রির ক্ষেত্রে কেজিপ্রতি ভ্যাট তিন টাকা করার প্রস্তাব করেছে। বর্তমানে ছয় টাকা হারে ভ্যাট ধার্য রয়েছে।
এদিকে, এনবিআরের সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনায় তৈরি পোশাক উৎপাদন ও রপ্তানির সঙ্গে সংশ্নিষ্ট সব ধরনের পণ্য ও সেবাকে শতভাগ ভ্যাটমুক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছে নিট পোশাক উৎপাদন ও রপ্তানিকারক উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিকেএমইএ। শূন্য ভ্যাট রিটার্ন দাখিলের বাধ্যবাধকতা থেকেও অব্যাহতি চাওয়া হয়েছে সংগঠনের পক্ষ থেকে।

এ ছাড়া স্থানীয় ব্যাক টু ব্যাক এলসি বা ঋণপত্র খোলার ক্ষেত্রে প্রচ্ছন্ন রপ্তানিকারকদের বন্ডেড ওয়্যার হাউস থাকার বাধ্যবাধকতা থেকে অব্যাহতি চাওয়া হয়েছে সংগঠনের পক্ষ থেকে।

প্রাক-বাজেট আলোচনায় বিকেএমইএর পক্ষে নেতৃত্ব দেন সংগঠনের নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম। সহসভাপতি ফজলে শামীম এহসানসহ সংগঠনের অন্য নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

বিকেএমইএর অন্য দাবির মধ্যে রয়েছে- উৎসে আয়করকে চূড়ান্ত করদায় হিসেবে গণ্য করা, করপোরেট করের বর্তমান হারে আরও পাঁচ বছর অব্যাহত রাখা ইত্যাদি।