আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সরবরাহ করা তথ্য সঠিক কিনা তা বহিঃনিরীক্ষক প্রতিষ্ঠানকে যাচাই করে বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন চূড়ান্ত করতে হবে। এ ক্ষেত্রে খসড়া আর্থিক প্রতিবেদনের সঙ্গে ওই প্রতিষ্ঠানের সফটওয়্যারে সংরক্ষিত তথ্য মিলিয়ে দেখতে হবে। সম্প্রতি বিভিন্ন বহিঃনিরীক্ষক প্রতিষ্ঠানকে এ বিষয়ে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো প্রথমে আর্থিক প্রতিবেদন তৈরি করে বহিঃনিরীক্ষক প্রতিষ্ঠানকে দেয়। এতে নিরীক্ষক কোনো পর্যবেক্ষণ থাকলে তা উল্লেখ করে। বাংলাদেশ ব্যাংক আলাদাভাবে পরিদর্শন করে তথ্যের সঠিকতা যাচাই করে। সংশ্নিষ্ট প্রতিষ্ঠান, বহিঃনিরীক্ষক প্রতিষ্ঠান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের ভিত্তিতে বার্ষিক রিপোর্ট চূড়ান্ত হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের চিঠিতে বলা হয়েছে, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নিরীক্ষা সম্পাদনের সময় প্রতিষ্ঠানের সরবরাহ করা আর্থিক বিবরণীর সঙ্গে সংশ্নিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সফটওয়্যারে সংরক্ষিত সাধারণ খতিয়ান সঙ্গতিপূর্ণ কিনা যাচাই করতে হবে।

উত্তরা ফাইন্যান্সের ২০১৯-ভিত্তিক আর্থিক প্রতিবেদনের সঙ্গে সফটওয়্যারের তথ্যের ব্যাপক গরমিল ধরা পড়ে। সে পরিপ্রেক্ষিতে এমন চিঠি দেওয়া হয়েছে।