নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণ করা না হলে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা রাজপথে অবস্থান করবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। 

একইসঙ্গে তারা দেশের অর্থ পাচার, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজির প্রতিবাদও জানাবে বলে উল্লেখ করেছেন চুন্নু। 

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বিজয়নগরে জাতীয় পার্টি আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, ‘যদি দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করা না হয়, যদি দেশের দুর্নীতি বন্ধ করা না হয়, যদি দেশের টাকা পাচার বন্ধ না হয়..... টেন্ডারবাজি, দলবাজি আর চাঁদাবাজি বন্ধ না হয় তাহলে জাতীয় পার্টি আর রাজপথ ছাড়বে না। আমরা গণমানুষের দাবি নিয়ে গণমানুষকে সাথে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলব।’ 

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, ‘এই মুহূর্তে বাংলাদেশ এক কঠিন সময় অতিবাহিত করছে, যখন দেশে দ্রব্যমূল্য লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। সংসার চালাতে মানুষ হিমশিম খাচ্ছে। বিশেষ করে করোনাকালে যারা কর্মহীন হয়ে পড়েছে তাদের সবার কর্মসংস্থান হয়নি। সব মিলিয়ে দেশে বেকারের সংখ্যা অন্তত ৫ কোটি। এমন বাস্তবতায় যেভাবে দ্রব্যমূল্য বাড়ছে তাতে মনে হয় দেশের মানুষের প্রতি সরকারের কোনো দরদ নেই। সরকার মানুষের কষ্ট বোঝে না, মানুষের মনের ভাষা বোঝে না।’ 

চুন্নু বলেন, ‘নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধির পাশাপাশি পানি-গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হবে গণবিরোধী সিদ্ধান্ত। এদেশের মানুষ এমন গণবিরোধী সিদ্ধান্ত মেনে নেবে না।’

মানববন্ধনে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও জাতীয় পার্টি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা বলেন, ‘দেশের মানুষ ভালো নেই। রাজধানীর অলিগলিতে টিসিবির গাড়ির পেছনে লাইন দেখলেই বোঝা যায় কতটা দুঃসহ জীবন যাপন করছে দেশের মানুষ।’

এসময় জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও জাতীয় মহিলা পার্টির আহ্বায়ক সালমা ইসলাম বলেন, ‘জাতীয় পার্টি মানুষের সাথে আছে বলেই আমরা মানুষের কষ্ট বুঝতে পারি। মানুষের পকেটে টাকা নেই, পেটে ভাত নেই। এমন বাস্তবতায় জাতীয় পার্টি ঘরে বসে থাকবে না। সংসার চালাতে দেশের মানুষ হিমশিম খাচ্ছে,  এসময় আমরা ঘরে বসে থাকতে পারি না। আমরা মানুষের জন্য রাজনীতি করছি আমরা মানুষের জন্যই রাজপথে থাকব।’ 

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জাতীয় পার্টির বিভিন্ন থানা, ওয়ার্ড এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ব্যানার-ফেস্টুন, মিছিল নিয়ে মানববন্ধনে যোগ দেন।