ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণ এবং মস্কোর ওপর পশ্চিমা বিশ্বের নিষেধাজ্ঞার ফলে বিশ্বজুড়ে তেল সংকট সত্ত্বেও অতিরিক্ত তেল উৎপাদনে অসম্মতি জানিয়েছে ওপেক প্লাস। গত বুধবার তারা এ ঘোষণা দিয়েছে। তেল উৎপাদন বাড়াতে যুক্তরাষ্ট্রের কড়া চাপ সত্ত্বেও এই সিদ্ধান্ত নিল সংগঠনটি। ওপেক প্লাস পেট্রোলিয়াম রপ্তানিকারক দেশ এবং এর মিত্র দেশগুলোর সংগঠন। এ ছাড়া মস্কোর ওপর কড়া নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও সৌদির সঙ্গে রাশিয়ার ওপেক প্লাস চুক্তি বলবৎ থাকবে বলে জানানো হয়েছে। গত বুধবার ওপেক প্লাসের সর্বশেষ সভায় আগামী এপ্রিল মাসে প্রতিদিন চার লাখ ব্যারেল উৎপাদন বাড়ানো হবে বলে জানানো হয়েছে।
বিশ্বে অপরিশোধিত তেলের দাম নতুন মাইলফলক ছুঁয়েছে। রাশিয়ার তেল সরবরাহ নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হওয়ায় বুধবার ব্রেন্ট ক্রুডের দাম ব্যারেলপ্রতি ১১৯ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। সাম্প্রতিক লেনদেনে ব্রেন্ট ক্রুডের দাম লাফিয়ে ৫ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়ে ব্যারেলপ্রতি ১১৩ দশমিক ২০ ডলার হয়। একপর্যায়ে তা বেড়ে ১১৯ ডলারের মাইলফলক ছুঁয়েছে। এটি ২০১৪ সালের জুন মাসের পর এক দিনে সর্বোচ্চ। এদিকে, বুধবার সকালে যুক্তরাষ্ট্রের অপরিশোধিত তেল ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডব্লিউটিআই) আরও ৪ শতাংশ বেড়ে ব্যারেলপ্রতি ১০৭ দশমিক ৪২ ডলারে পৌঁছায়। এদিন ডব্লিউটিআই দাম ব্যারেলপ্রতি ৭ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়ে ১১১ দশমিক ৫০ ডলার পর্যন্ত উঠে যায়, যা ২০১৩ সালের আগস্ট মাসের পর সর্বোচ্চ। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সির সদস্যরা জরুরি ভিত্তিতে বাজারে ৬০ মিলিয়ন ব্যারেল জ্বালানি তেল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর এক দিন পরই তেলের দাম এ মাইলফলক পেরোল।