তৈরি পোশাকের ন্যায্য দর আদায়ে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলওর হস্তক্ষেপ চেয়েছে বাংলাদেশের উদ্যোক্তারা। সংস্থার মহাপরিচালক গাই রাইডারের সঙ্গে বৈঠকে উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে এ সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। আইএলওর সদর দপ্তর জেনেভায় বুধবার এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়, নিরাপদ কর্মপরিবেশ, শ্রম অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং পোশাক শিল্পের টেকসই উন্নয়নে ন্যায্য দর অত্যন্ত জরুরি একটি বিষয়। বৈশ্বিক সরবরাহ চেইনে সুতা, বিভিন্ন রাসায়নিক এবং অন্যান্য কাঁচামালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ব্যাপক হারে; শিপিং চার্জও বেড়েছে। সব মিলিয়ে উৎপাদন খরচ অস্বাভাবিক বেড়েছে। 

কিন্তু ব্র্যান্ড এবং ক্রেতাদের কাছ থেকে এ ব্যাপারে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাচ্ছেনা। 

আইএলওসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক ফোরামে তৈরি পোশাকের ন্যায্য মূল্য ইস্যুতে ক্রেতাদের ওপর নৈতিক চাপ তৈরির অনুরোধ করেন তারা।

বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলে ছিলেন তৈরি পোশাক উৎপাদন ও রপ্তানিকারক উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান, এমপ্লয়ার্স ফেডারেশন অব বাংলাদেশের (বিইএফ) সভাপতি আরদাশির কবির, বাংলাদেশ নিটওয়্যার উৎপাদন ও রপ্তানিকারক উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম, বিজিএমইএর আইএলও বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান এএনএম সাইফুদ্দিন ও বিইএফ এর মহাসচিব ফারুক আহমেদ।

বৈঠকে আইএলও মহপরিচালককে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের বর্তমান পরিস্থিতি, শিল্পের চ্যালেঞ্জ এবং সম্ভাবনার কথা অবহিত করেন রপ্তানিকারক উদ্যোক্তারা। পোশাক শিল্পের নিরাপদ কর্মপরিবেশ উন্নয়ন, শ্রমমান উন্নয়ন ও পরিবেশসম্মত টেকসই উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন তারা। এ সময় আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি হিসেবে বিভিন্ন অর্জনের কথাও মহাসচিবকে জানান তারা।