চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের তুলাতুলী এলাকা থেকে অবৈধভাবে মজুদ করা প্রায় ১০ হাজার এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত তিন হোতাসহ ৯ জনকে আটক করেছে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাব-৭-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ।

আটক মূলহোতারা হলেন- তুলাতুলীর মো. ইসমাইল হোসেন কুসুম, মো. মহসীন ও মো. নুরুন নবী। এদের মধ্যে মো. ইসমাইল হোসেন কুসুমকে ২০২১ সালের ১২ জুলাই সিলিন্ডার কাটার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

র‌্যাব অধিনায়ক বলেন, ৪ জুন সীতাকুণ্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপোর বিস্ফোরণের পর র‌্যাব জানতে পারে, কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ীরা দীর্ঘদিন ধরে সীতাকুণ্ডের তুলাতুলী এলাকার জনবহুল গ্রামে অবৈধ চোরাই এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার সংগ্রহ করে তা কেটে রি-রোলিং মিলে বিক্রি করে আসছে। ফলে এলাকার মানুষের জীবনের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়াসহ যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার সম্ভবনা রয়েছে। পরিবেশ দুষণ ও দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে থাকলেও চক্রের সদস্যদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ জানান, সম্প্রতি লোহার দাম বেড়ে যাওয়ায় মাথাচাড়া দিয়ে ওঠেছে চক্রটি। বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিটি সিলিন্ডার ৬০০ টাকা দরে কিনে প্রতিকেজি ৬০ টাকায় বিক্রি করতো। এভাবে ১৩ কেজির একটি গ্যাস সিলিন্ডার ভাঙারি লোহার মূল্য দাঁড়ায় ৭৮০ টাকায়। পাশাপাশি সিলিন্ডারের নজেল পুনরায় বিক্রি হয় ২৫০ টাকায়।

তিনি বলেন, ৮ ও ৯ জুন সিন্ডিকেটের মুলহোতাসহ জড়িত ৯ জনকে আটক করা হয়েছে।