পাকিস্তানে ইসলামাবাদের বাংলাদেশ হাইকমিশনে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনায় স্বপ্নের পদ্মা বহুমুখী সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উদযাপন করা হয়। এ উপলক্ষ্যে শনিবার দূতালয় প্রাঙ্গন বর্নাঢ্য ব্যানার ও পোস্টারে সুসজ্জিত করা হয়। আমন্ত্রিত অতিথিসহ হাইকমিশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এরপর পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধনের লাইভ স্ট্রিমিং এ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও অতিথিবৃন্দ স্বপরিবারে যুক্ত হয়ে অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

পাকিস্তানে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার রুহুল আলম সিদ্দিকী বলেন, বাংলাদেশের আত্মনির্ভরশীল ও আত্মমর্যাদার প্রতীক পদ্মা বহুমুখী সেতুর শুভ উদ্বোধনে আমরা সবাই অত্যন্ত আনন্দিত। পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ নিয়োজিত সকল দেশি-বিদেশি প্রকৌশলী, পরামর্শক, কর্মকর্তা-কর্মচারী, নিরাপত্তা তদারকিতে নিয়োজিত সেনাবাহিনী ও নির্মাণ শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অক্লান্ত পরিশ্রমের জন্য অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানান।

তিনি বলেন, আজ বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ও ঐতিহাসিক দিন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাহসী সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেশের জনগণের কাছে বিপুল সমর্থন পেয়েছিল।

তিনি বলেন, এই প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্পদ ব্যবস্থাপনা, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও দক্ষতার নিদর্শন হিসেবে বিশ্বে আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সাহস এনে দিয়েছে।

আলোচনা শেষে পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের ওপর নির্মিত একটি ভিডিওচিত্র প্রদর্শিত হয়। সবশেষে জাতির পিতার আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি, অগ্রগতি ও কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।