আগামী তিন বছরে বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি মার্কিন ডলার বাজেট সহায়তা দিতে আগ্রহ দেখিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। সংস্থাটির বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি জয়েন্দু দে এ বিষয়ক আলোচনা সভায় ইতিবাচক মত প্রকাশ করেন। আগামী ১২ জুলাই আইএমএফের একটি মিশন বাংলাদেশে আসবে। ওই মিশনের কাছে বাংলাদেশের প্রস্তাব তুলে ধরবেন তিনি। অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে এ তথ্য জানা গেছে।

বুধবার দীর্ঘমেয়াদি বাজেট সহায়তা পাওয়া নিয়ে আইএমএফের আবাসিক প্রতিনিধির সঙ্গে অনলাইনে বৈঠক করেন অর্থসচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন ও পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য শরিফা খান।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, আগামী তিন বছরে আইএমএফের কাছ থেকে ৪৫০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা পাওয়ার বিষয়ে সংস্থাটির সঙ্গে ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে। এখন অর্থমন্ত্রীর কাছে সারসংক্ষেপ পাঠিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পাওয়া সাপেক্ষে সংস্থাটির সঙ্গে আনুষ্ঠানিক আলোচনা শুরু হবে।

ওই কর্মকর্তা জানান, আইএমএফের প্রস্তাবিত সংস্কারের শর্তগুলোর বিষয়ে সরকারের রাজনৈতিক সম্মতি পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিকভাবে সংস্থাটির কাছে ক্রেডিট লাইন চেয়ে চিঠি দেওয়া হবে। ঈদুল আজহার পরপরই সে প্রক্রিয়া শুরু হবে। ১২ জুলাই আইএমএফের ওয়াশিংটন কার্যালয় থেকে একটি মিশন ঢাকা সফরে আসবে। এটি নিয়মিত মিশন হলেও তাদের সফরকালে এই ক্রেডিট লাইন পাওয়ার বিষয়েও আলোচনা হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকার আইএমএফ থেকে কমপক্ষে ৩ বছর মেয়াদে একটি বড় ঋণ অনুমোদন করিয়ে রাখতে চাচ্ছে। যাতে সরকারের যখন প্রয়োজন হবে তখন অর্থপ্রাপ্তি নিশ্চিত হয় এবং দেশের বৈদেশিক মুদ্রার মজুতে চাপ কমে আসে। আইএমএফের একাধিক ঋণ কর্মসূচি থেকে এই ঋণ নেওয়া হবে।