পাকিস্তানে যাত্রীবাহি বাস খাদে পড়ে ১৯ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন অন্তত আরও ১১ জন। রোববার সকালে দেশটির বেলুচিস্তান প্রদেশের জোব জেলায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। খবর দ্য ডনের

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩০ জনেরও বেশি যাত্রী নিয়ে বাসটি রাজধানী ইসলামাবাদ থেকে কোয়েটার দিকে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে বাসটি খাদে পড়ে গেলে হতাহতের এই ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনার পর টেলিভিশনের ফুটেজে ঘটনাস্থলে উদ্ধারকর্মীদেরকে রক্তাক্ত যাত্রীদের সাহায্য করতে দেখা গেছে। অন্য একটি দৃশ্যে, দুর্ঘটনাকবলিত বাসের ধ্বংসাবশেষ দেখা গেছে।

বেলুচিস্তানের শেরানীর সহকারী কমিশনার মেহতাব শাহ ডন ডটকমকে জানান, ধনা সার এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি বলেন, দ্রুত গতিতে চলার সময় বাসটি খাদে পড়ে যায়। এতে ১৯ যাত্রী নিহত ও ১১ জন আহত হয়।

শাহ আরও বলেন, উদ্ধারকারী দলগুলি দুর্ঘটনার খবর পাওয়ার পরপরই ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। মৃতদেহগুলিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং তাদের পরিচয় শনাক্ত করার প্রক্রিয়া চলছে।

জোবের সিভিল হাসপাতালের মেডিক্যাল সুপারিনটেনডেন্ট ডা. নুরুল হক জানান, আহতদের হাসপাতালে আনা হচ্ছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেও তিনি জানান।

এদিকে, বেলুচিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী মীর আবদুল কুদুস বিজেঞ্জো এই ঘটনায় নিহতদের জন্য শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি নিহতদের পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনাও জানিয়েছেন। একই সঙ্গে আহতদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে জোবের সিভিল হাসপাতালে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার নির্দেশ দেন।

দুর্ঘটনার পর পরই দেশটির প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফ গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন। রেডিও পাকিস্তানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী আহতদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা সহায়তা প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন।

গত মাসে, উত্তর বেলুচিস্তানের কিলা সাইফুল্লাহ জেলার কাছে একটি যাত্রীবাহী ভ্যান খাদে পড়ে যাওয়ায় একটি পরিবারের নয়জন সদস্ সহ ২২ জন নিহত হন। লোরালাই থেকে জোব যাওয়ার পথে ২৩ জন যাত্রী নিয়ে ভ্যানটি আখতারজাই এলাকায় পৌঁছলে ২০০ ফুট গভীর খাদে পড়ে যায়।