রোববারের মতো গতকাল সোমবারও বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে। ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তথ্যপ্রযুক্তি এবং চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য খাতের অধিকাংশ শেয়ার আগের দিনের চেয়ে কম দামে লেনদেন শেষ হয়েছে। তবে বস্ত্র, সিমেন্ট এবং সিরামিক খাতের দর বেড়েছে। অন্য সব খাতে ছিল মিশ্রধারা।

এর মধ্যে টানা দ্বিতীয় দিনে টেলিকম খাতের কোম্পানির রবির শেয়ারদর সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে কেনাবেচা হয়েছে। গতকাল শেয়ারটি ৩৬ টাকা ৪০ পয়সায় কেনাবেচা হয়েছে। গত ২৯ জুন শেয়ারটি ২৮ টাকা ৬০ পয়সায় কেনাবেচা হয়। সে হিসাবে গত তিন কার্যদিবসে এর দর ৭ টাকা ৮০ পয়সা বা ২৭ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে তালিকাভুক্তির পর ১৯তম দিনে এসে মেঘনা ইন্স্যুরেন্সের দর সার্কিট ব্রেকার দরে কেনাবেচার ধারা থেকে নেমেছে। গতকালও লেনদেনের শুরুতে সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে ৫৯ টাকা ৬০ পয়সা দরে কেনাবেচা হয়। কিন্তু প্রথম মিনিটেই বিক্রির চাপ এলে কিছুটা কমে কেনাবেচা হয়। মাঝে ৫৫ টাকায় দর নেমে আসে। তবে শেষ পর্যন্ত পৌনে ৬ শতাংশ দর বেড়ে ৫৭ টাকা ৩০ পয়সায় সর্বশেষ কেনাবেচা হয়েছে।

ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৮১ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ১৪৯ শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের দর বেড়েছে। কমেছে ১৮২টির দর এবং অপরিবর্তিত ছিল ৫০টির। বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমায় প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স প্রায় ১৩ পয়েন্ট হারিয়ে ৬৩৪৬ পয়েন্টে নেমেছে।

বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমলেও অন্তত ৯ কোম্পানির শেয়ার সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে কেনাবেচা হয়। এগুলো হলো- ইস্টার্ন কেবলস, ইন্ট্রাকো সিএনজি রিফুয়েলিং, প্রাইম টেক্সটাইল, রবি, শ্যামপুর সুগার মিলস, জাহীন স্পিনিং, জুট স্পিনার্স, মেঘনা ইন্স্যুরেন্স এবং সাভার রিফ্যাক্টরিজ। এর মধ্যে প্রথম ৬টি লেনদেনের শেষ পর্যন্ত সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দর বা ১০ শতাংশ বেড়ে কেনাবেচা হয়েছে।

এদিকে সার্বিক নিম্নমুখী ধারার মধ্যে গতকাল সার্কিট ব্রেকারের সর্বনিম্ন দরে কেনাবেচা হয় ১২৭ কোম্পানির শেয়ার। লেনদেনের শেষ পর্যন্ত ওই দরে স্থির ছিল ৩৫টি। গতকাল ডিএসইতে ৬৬২ কোটি ৬১ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে, যা রোববারের তুলনায় পৌনে ৮ কোটি টাকা বেশি। সর্বাধিক পৌনে ২৮ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে রবির শেয়ারের।