আজ মঙ্গলবার থেকে দেশের আটটি বিভাগের বিশটি শহরে পাওয়া যাবে উবার। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে রাইড শেয়ারিং কোম্পানিটি।

এতে বলা হয়, বর্তমানে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট, বগুড়া, বাগেরহাট, বরিশাল, রংপুর, ময়মনসিংহ, যশোর, কুমিল্লা, মৌলভীবাজার, নীলফামারী, শ্রীমঙ্গল, ফেনী, দিনাজপুর, খুলনা এবং কক্সবাজারে উবারের সেবা চালু আছে। উনিশ ও বিশতম শহর হিসেবে গাজীপুর ও নাটোরে 'মটো' সেবা চালু করেছে উবার। এখন বিশটি শহরের প্রতিটিতেই 'উবার মটো' চালু আছে। উবারএপ চালু আছে পাঁচটি শহরে। এছাড়া উবার প্রিমিয়ার একটি শহরে, সিএনজি তিনটি শহরে, রেন্টাল তিনটি শহরে, ইন্টারসিটি চারটি শহরে এবং উবারএক্সএল চালু আছে দুটি শহরে।

এতে আরও বলা হয়, নিরাপদ, ঝামেলামুক্ত ও সাশ্রয়ী যোগাযোগের সেবা প্রদানের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের আস্থাভাজন রাইডশেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছে উবার। রেন্টাল, সিএনজি, ইন্টারসিটি, কানেক্ট, মটো ইত্যাদির মতো দুই, তিন ও চার চাকার বিভিন্ন ধরনের সার্ভিস উবারের প্ল্যাটফর্মে আছে। এর ফলে শহর জুড়ে চলাচল এখন আগের তুলনায় অনেক সহজ হয়ে উঠেছে। পাশাপাশি, এর মাধ্যমে আরও বেশি সংখ্যক চালকদের জন্য উপার্জনের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে।

উবারের বাংলাদেশ ও পূর্ব ভারত প্রধান মো. আরমানুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশজুড়ে বিশটি শহরে সেবা সম্প্রসারণ করতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। এর মাধ্যমে যাত্রী ও চালক সবাই আমাদের সেবা নিতে পারছেন। উবারের কাছে কমিউনিটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা গর্বিত যে, সাড়ে পাঁচ বছরের কিছু বেশি সময়ের মধ্যে এসব শহরের মানুষদের জীবনে আমরা ছাপ ফেলতে পেরেছি। গ্রাহকদের যাতায়াতের চাহিদা পূরণে দ্বিগুণ উদ্যমে কাজ করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। এজন্য বাজারে কোনো পণ্যের প্রয়োজনীয়তা বেশি, সে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করছি আমরা। আমাদের যাত্রা সবে শুরু হচ্ছে। সামনের বছরগুলোতে আরও অনেক মাইলফলকের অর্জন উদযাপনের ব্যাপারে আমরা আশাবাদী।’

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি চালকদের জন্য বেশ কিছু নতুন ফিচার চালু করেছে উবার। এসব ফিচার তাদের সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবে। উবার এখন আগে থেকেই চালকদের ট্রিপের গন্তব্য দেখায়। এর ফলে চালকরা গন্তব্য দেখে ট্রিপ নিতে পারেন। এটি ট্রিপ শুরু হওয়ার আগে চালকদের ভাড়া পরিশোধের পদ্ধতিও (নগদ বা অনলাইন) দেখায়। এসব নতুন ফিচার চালু হওয়ার ফলে, রাইড ক্যান্সেলেশন নিয়ে চালক ও যাত্রীদের দীর্ঘদিনের করা অভিযোগের পরিমাণ কমে আসছে।