পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, আগস্ট মাসে মূল্যস্ম্ফীতির হার বেড়েছিল। তবে সেপ্টেম্বরে তা কমে এসেছে। দু-একদিনের মধ্যেই বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে।

গতকাল সোমবার রাজধানীতে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) আয়োজিত এক কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) জনশুমারি ও গৃহগণনার প্রাথমিক প্রতিবেদন যাচাই (পিইসি) জরিপ কার্যক্রম বিষয়ে বিআইডিএসের সম্মেলন কক্ষে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেওয়ার এক পর্যায়ে সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ম্ফীতি কমে আসার কথা জানান পরিকল্পনামন্ত্রী। এর কারণ ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, এক কোটি ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে চার কোটি মানুষ কম দরে নিত্যপণ্য কেনার সুবিধা পাচ্ছেন। এ ছাড়া মূল্যস্ম্ফীতিতে যারা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হন, তাঁরা সরকারের নানা উদ্যোগের মাধ্যমে উপকৃত হচ্ছেন। ফলে মূল্যস্ম্ফীতির পাগলা ঘোড়া বাগে আনা সম্ভব হয়েছে। তবে সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ম্ফীতি কমে ঠিক কত হয়েছে- সে তথ্য জানাননি পরিকল্পনামন্ত্রী।

সর্বশেষ গত জুলাই মাসের মূল্যস্ম্ফীতির প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিবিএস। ওই মাসে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে মূল্যস্ম্ফীতির হার ছিল ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ। এর পরের দুই মাসের হিসাব এখনও প্রকাশ করেনি বিবিএস। সাধারণত প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহে আগের মাসের মূল্যস্ম্ফীতির তথ্য প্রকাশ করা হয়। তবে এখনও আগস্টের তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

মূল্যস্ম্ফীতির প্রতিবেদন প্রকাশে দেরির কারণ ব্যাখ্যায় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, মূল্যস্ম্ফীতির তথ্য নিয়ে সরকার কোনো রকম লুকোচুরি করছে না। শুধু প্রক্রিয়াগত কারণে প্রতিবেদন প্রকাশে একটু দেরি হচ্ছে। দু-একদিনের মধ্যেই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে।

এদিকে বিবিএসের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র সমকালকে জানিয়েছে, গত আগস্ট মাসে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে মূল্যস্ম্ফীতির হার ছিল ৯ দশমিক ২ শতাংশ। উল্লেখ করা যেতে পারে, চলতি অর্থবছর গড় মূল্যস্ম্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশের মধ্যে রাখার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে সরকারের।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেল, খাদ্যসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম চড়া। নানাভাবে যার প্রভাব পড়েছে দেশের বাজারেও। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাই থেকে প্রতি মাসেই বাড়তে দেখা গেছে মূল্যস্ম্ফীতি। পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে অসাধু ব্যবসায়ীরা অযৌক্তিকভাবে পণ্যের দাম বাড়াচ্ছেন- এমন অভিযোগও মিলছে। সব মিলিয়ে মূল্যস্ম্ফীতি নিয়ে চরম অস্বস্তিতে রয়েছেন নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষ।

গতকাল বিআইডিএসের অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, পরিকল্পনা সচিব মামুন-আল-রশীদ, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) মহাপরিচালক মতিউর রহমান, জনশুমারি ও গৃহগণনা প্রকল্পের পরিচালক মো. দিলদার হোসেন, বিআইডিএসের পিইসি কার্যক্রমের সমন্বয়কারী ড. মুহাম্মদ ইউনুস। বিআইডিএসের মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।