শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, শিল্প মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে লজিস্টিকস শিল্প উন্নয়ন নীতি প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে বিশ্বের অন্যান্য দেশের উত্তম দৃষ্টান্তগুলো অনুসরণ করে সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়, দপ্তর, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহের সহযোগিতা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য সম্ভব সব রকম ব্যবস্থা নিয়েছে। লজিস্টিকস খাত অবকাঠামোগত উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান বিবেচনায় শিল্প মন্ত্রণালয় এটিকে রপ্তানি বহুমুখীকরণ এবং অগ্রাধিকার খাত হিসেবে জাতীয় শিল্পনীতি-২০২২ এ অন্তর্ভুক্ত করেছে। একই সাথে লজিস্টিকসের ২২টি উপ-খাতকেও জাতীয় শিল্পনীতিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে 'ফরমুলেটিং ন্যাশনাল লজিস্টিকস ইন্ডাস্ট্রিজ ডেভেলপমেন্ট পলিসি ফর বাংলাদেশ: এক্সপেরিয়েন্স ফ্রম গ্লোবাল গুড প্রাকটিসেস' শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। বিশ্ব ব্যাংক গ্রুপ এবং বিজনেস ইনিশিয়েটিভ লিডিং ডেভেলপমেন্টের (বিল্ড) সহযোগিতায় দু'দিনব্যাপী এ কর্মশালার আয়োজন করে শিল্প মন্ত্রণালয়।

নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৮২৪ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। ডিজিটাল বিপ্লব এবং অবকাঠামোখাতে উন্নয়নের উদ্যোগের জন্য এ অর্জন সম্ভব হয়েছে। বেসরকারিখাতের অবদানও এ বিষয়ে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশের শিগগিরই উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ ঘটবে। ফলে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য লজিস্টিকসখাতে খরচ কমিয়ে আনা জরুরি।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে সড়ক যোগাযোগ নির্ভর মালামাল পরিবহন ব্যবস্থা বিদ্যমান। অথচ বিশাল ব-দ্বীপের দেশ হিসেবে বাংলাদেশ নৌপথকেন্দ্রিক পরিবহন ব্যবস্থার সুফল পুরোপুরি কাজে লাগাতে পারেনি। একই অবস্থা রেলওয়ে খাতেও। বাংলাদেশের লজিস্টিকস খাতের উন্নয়নে ব্যবসার পরিবেশ আরও উন্নত করে স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদন ও ব্যবসা-বাণিজ্যকে গতিশীল করে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য সকল উপায়ে কাজ করতে হবে।

বিল্ডের চেয়ারপারসন মিজ নিহাদ কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব মো. তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া, এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট মো: জসিম উদ্দিন, শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানা, বিশ্বব্যাংক দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ট্রান্সপোর্ট বিষয়ক প্র্যাকটিস ম্যানেজার ড. সৌমিক রাজ মেহনদিরত্ত প্রমুখ। এছাড়া সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।