নারী পোশাক শ্রমিককে বিয়ের প্রলোভনে অপহরণ মামলায় খালাস পেয়েছেন 'সিরিয়াল কিলার' রসু খাঁ। রোববার এ রায় দেন চাঁদপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জান্নাতুল ফেরদৌস চৌধুরী। রসু খাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় হত্যা, ধর্ষণ, অপহরণসহ ১১টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে তিনটিতে মৃত্যুদণ্ড, দুটিতে খালাস ও ছয়টি মামলা বিচারাধীন।

অপহরণের শিকার নারী রাজধানীর উত্তরায় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন। তাঁর বাড়ি ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার পাঁচরুকী এলাকায়।
মামলার বিবরণ থেকে জানা গেছে, ২০০৪ সালের ৬ ডিসেম্বর রাজধানী থেকে এক নারী পোশাক শ্রমিককে কৌশলে চাঁদপুর সদরের বালিয়া ইউনিয়নে মামার বাড়ি নিয়ে যান রসু খাঁ। এখানে এসে তাঁর স্ত্রী-সন্তান রয়েছে বলে জানতে পারেন ভুক্তভোগী নারী। তখন দু'জনের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়। এরপর ১৭ ডিসেম্বর রাতে ওই নারীকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বালিয়া ইউনিয়নের চাপিলা বিলে কুপিয়ে জখম করেন রসু খাঁ। তাঁর ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে কেটে পড়েন অভিযুক্ত। ভুক্তভোগী নারীকে উদ্ধার করে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন স্থানীয়রা। এ খবর পেয়ে চাঁদপুরে ছুটে আসেন আহত নারীর বাবা। মেয়ে সুস্থ হওয়ার পর ২০০৫ সালের ৬ জানুয়ারি রসু খাঁর নামে চাঁদপুর সদর থানায় অপরহণ মামলা করেন তিনি। তদন্ত শেষে একই বছর ২৯ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দেন তদন্ত কর্মকর্তা চাঁদপুর সদর থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) মাসুদুর রহমান।
রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ কৌঁসুলি (পিপি) সাইয়ে্যদুল ইসলাম বাবু বলেন, দীর্ঘ ১৮ বছরে আটজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। সাক্ষ্য-প্রমাণ ও নথিপত্র পর্যালোচনা শেষে আসামির উপস্থিতিতে এই রায় দেন আদালত।
মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী ছিলেন দেবাশীষ রায় এবং রাষ্ট্রপক্ষের সহকারী কৌঁসুলি (এপিপি) ছিলেন খোরশেদ আলম শাওন।