বাংলাদেশে বড় পরিসরে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী সৌদি আরবের ব্যবসায়ীরা। এ লক্ষ্যে আগামী মার্চে ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য বিজনেস সামিটে সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান আল সাউদের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল অংশ নেবে।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সঙ্গে মতবিনিমিয়কালে এ কথা জানান ঢাকায় নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত ইসা ইউসুফ ইসা আলদুহাইলান। বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশন (এফবিসিসিআই) আগামী মার্চে বিজনেস সামিটের আয়োজন করছে। 

সৌদি রাষ্ট্রদূত ইসা ইউসুফ ইসা আলদুহাইলান বলেন, বাংলাদেশ সৌদি আরবের বন্ধু রাষ্ট্র। বিনিয়োগ ও দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যিক সম্পর্কের উন্নয়নে সৌদি আরব বাংলাদেশকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে। বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার আগ্রহ নিয়ে সৌদি প্রতিনিধিদল বিজনেস সামিটে অংশ নেবে। 

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, সৌদি আরব বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের বৃহৎ ব্যবসায়িক ও উন্নয়ন সহযোগী। সৌদি আরবে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, বেকারি আইটেম, ভেজিটেবল, জুস, জুট পণ্যসহ বেশকিছু পণ্য রপ্তানি হয়। বাংলাদেশ সৌদি আরব থেকে পেট্রোলিয়াম ওয়েলস, পেট্রোলিয়াম গ্যাস, ফার্টিলাইজার, খেজুরসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানি করে। 

তিনি বলেন, গত ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশ ২৯০ দশমিক ৬৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য সৌদি আরবে রপ্তানি করেছে, একই সময়ে এক হাজার ৬৯৩ দশমিক ২৬ মিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য আমদানি হয়েছে। 

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ১০০ স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলা হচ্ছে। সেখানে বিনিয়োগ উপযোগী পরিবেশে সৌদি ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করে লাভবান হতে পারেন।

এদিন বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সচিবালয়ে ঢাকায় সফররত গাম্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মামাদৌ তানগারার সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। এসময় উভয় দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা হয়। 

এর আগে বাণিজ্যমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনে বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার লিলি নিকোলাসের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল মতবিনিময় করেছে।

 কানাডার হাইকমিশনার বাংলাদেশে সরকারি পর্যায়ে ভোজ্য তেল কেলোনা ও কেলোনা বিজ রপ্তানির প্রস্তাব দেন। এ বিষয় গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা হবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী জানান। 

এ সময় টিপু মুনশি বলেন, কানাডা বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের বড় বাজার। তিনি কানাডার বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহবান জানান।