চার মাস পর গত জানুয়ারিতে সঞ্চয়পত্র ভাঙানোর চেয়ে বিক্রি সামান্য বেশি। সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি হয়েছে মাত্র ৩৭ কোটি টাকা। আলোচ্য মাসে মোট ৮ হাজার ২৮৫ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। আগে কেনা সঞ্চয়পত্র ভাঙানো হয় ৮ হাজার ২৪৮ কোটি টাকা। যদিও সব মিলিয়ে চলতি অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়ে বিক্রি কমেছে ৩ হাজার ৬৯ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছর সঞ্চয়পত্র থেকে সরকার নিট ৩৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। তবে ঋণ না বেড়ে উল্টো কমছে। অথচ এর আগে কয়েক অর্থবছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক বেশি সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। এতে সরকারের সুদ ব্যয় অনেক বেড়ে যায়। পরিস্থিতি সামলাতে বিক্রি কমানোর নানা উদ্যোগ নেয় সরকার। এর মধ্যে উচ্চ মূল্যস্ফীতিসহ বিভিন্ন কারণে অনেকের সঞ্চয় ক্ষমতা কমেছে। আগের সঞ্চয় ভেঙে খাচ্ছেন কেউ কেউ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়ে মোট ৪৮ হাজার ৭৫৭ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। একই সময়ে ভাঙানো হয়েছে ৫১ হাজার ৮২৬ কোটি টাকা। মূলত গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত কেনার চেয়ে ভাঙানো বেশি হয়েছে ৩ হাজার ৫০৮ কোটি টাকা।