কিশোরগঞ্জে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে দুবৃর্ত্তরা ম্যুরালটি ভাঙচুর করে। কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের আখড়া বাজার ব্রিজ সংলগ্ন সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্বরে এ ম্যুরাল অবস্থিত। এ ঘটনায় কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো. আসাদুজ্জামান বাদী হয়ে অজ্ঞাত কয়েকজনের নামে বিশেষ ক্ষমতা আইনে কিশোরগঞ্জ সদর থানায় মামলা করেছেন। 

ভাঙচুরের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. পারভেজ মিয়া, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাদির মিয়া, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহামুদুল হাসান পারভেজ। 

  ভাঙচুরে ক্ষতিগ্রস্ত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল-সমকাল 

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, কিছু দুষ্কৃতকারী জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নামফলক এবং ম্যুরালের দুই-একটি জায়গার ক্ষতি করেছে। খবর পেয়ে পুলিশ সুপার ও মেয়রের সঙ্গে কথা বলেছি। যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে। এই ঘটনায় যে বা যারা জড়িত তাদের খুঁজে বের করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবো।

পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) বলেন, কে বা কারা রাত ৯টার আগে কোনো এক সময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরালে আঘাত করার চেষ্টা করেছে। কিছু অংশ ভাঙচুর করেছে। এ ঘটনায় আইনি প্রক্রিয়া নেওয়া হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. পারভেজ মিয়া বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম একটি অনুভূতির নাম। যে দুর্বৃত্তরা ন্যক্কারজনক কাজটি করেছে তাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবি জানাছি।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ আফজল বলেন, ম্যুরালটির আংশিক ভাঙচুর করা হয়েছে। যে বা যারাই এটি করেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

প্রসঙ্গত, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার উদ্যোগে সম্প্রতি শহরের আখড়াবাজার ব্রিজ সংলগ্ন নরসুন্দা নদীর তীরে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল নির্মিত হয়েছে।