কিশোরগঞ্জে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল ভাঙচুরের ঘটনায় গ্রেপ্তার মো.পারভেজকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। এর আগে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে  শনিবার তাকে আদালতে তুলে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। পরে রিমান্ড শুনানির জন্য ৮ আগস্ট দিন ধার্য করে আসামিকে জেলে পাঠান বিচারক। 

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি আবুবকর সিদ্দিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ম্যুরাল ভাঙচুরের অভিযোগে গ্রেপ্তার পারভেজ জেলার ইটনা উপজেলার রায়টুটী পশ্চিমপাড়ার বাসিন্দা। সে শহরের চরশোলাকিয়া বনানী মোড় এলাকার একটি বাসায় ভাড়া থাকে।

এদিকে, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল ভাঙচুরের প্রতিবাদে ঘটনাস্থল জেলা শহরের আখড়াবাজার সেতু এলাকার সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্বরে শনিবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। বেলা ১১টায় ছাত্রলীগের উদ্যোগে আয়োজিত কর্মসূচিতে প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের চাচাতো ভাই জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অজয় কর খোকন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বসির উদ্দিন রিপন, যুবলীগ নেতা মাহবুবুর রশিদ, মাহফুজুর রহমান, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফুর রহমান নয়ন প্রমুখ বক্তব্য দেন। বক্তারা ম্যুরাল ভাঙচুরকারীদের আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানান। 

এ মানববন্ধনে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও যুব মহিলা লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী অংশ নেন।

এর আগে সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্বর সংলগ্ন স্থানে নবনির্মিত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরালের কিছু অংশ ভাঙচুরের ঘটনা বৃহস্পতিবার জানাজানির পর এ নিয়ে তোলপাড় হয়। চারদিকে নিন্দার ঝড় ওঠে। এ ঘটনায় শুক্রবার কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে সদর মডেল থানায় মামলা করেন। পরে ওই দিন বিকেলে অভিযান চালিয়ে এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে পারভেজকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।