জলাতঙ্ক একটি মরণব্যাধি। এই রোগ সাধারণত গৃহপালিত প্রাণী ও বন্যপ্রাণীকে প্রথমে সংক্রমিত করে, মানুষ এই প্রাণীগুলোর লালার সংস্পর্শে এলে বা এই প্রাণীগুলো যদি মানুষকে কামড়ায় অথবা আঁচড় দেয় তাহলে এই রোগ মানুষের মধ্যে ছড়াতে পারে। জলাতঙ্ক রোগ অ্যান্টার্কটিকা ছাড়া প্রায় সব মহাদেশেই দেখা গেছে। বিশেষ করে এশিয়া ও আফ্রিকা মহাদেশে এই রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি। বিশ্বে প্রতি ৯ মিনিটে ১ জন ও বছরে ৫৯ হাজার মানুষ এ রোগে মৃত্যুবরণ করে। এর মধ্যে শতকরা ৯৫ ভাগ মানুষ এশিয়া ও আফ্রিকা মহাদেশের। জলাতঙ্ক রোগীর সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায় তৃতীয় সর্বোচ্চ। বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় চার থেকে পাঁচ লাখ মানুষ কুকুর, বিড়াল, শিয়াল এবং বেজির কামড় বা আঁচড়ের শিকার হয়ে থাকে, যার মধ্যে বেশিরভাগই শিশু।
জলাতঙ্ক রোগে আক্রান্ত হলে ঢোক গিলার সময় ডায়াফ্রাম, রেসপিরেটরি মাসল ও কণ্ঠনালির তীব্র ব্যথাযুক্ত সংকোচন হয়, বিশেষ করে পানি পান করার চেষ্টা করলে ডায়াফ্রাম ও অন্যান্য রেসপিরেটরি মাসলের তীব্র সংকোচন ও ব্যথা হয়, ফলে রোগীর মধ্য হাইড্রোফোবিয়া বা পানিভীতি তৈরি হয়। কোনো ব্যক্তি জলাতঙ্ক রোগে আক্রান্ত হলে প্রথমে আক্রান্ত ব্যক্তির ভীতি দূর করতে হবে। তাকে নিকটবর্তী হাসপাতালে বা ক্লিনিকে নিতে হবে। বাজারে রাবিপুর নামে ইনজেকশন পাওয়া যায়। তা চিকিৎসকের পরামর্শে গ্রহণ করতে হবে। প্রথম দিন দেওয়ার পর ৩, ৭, ১৪, ৩০ ও ৯০তম দিনগুলোতে ইনজেকশন দিতে হবে। কুকুর কামড়ানোর পরপরই টিকা নিয়ে মানুষ বেঁচে যেতে পারে। এ রোগে আক্রান্ত অন্তঃসত্ত্বা নারীদেরও এ টিকা দেওয়া যায়।
কুকুরে কামড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে প্রাথমিক চিকিৎসা অধিক গুরুত্বপূর্ণ। কুকুর বা অন্য কোনো বন্যপ্রাণী কামড়ালে প্রথমেই কাপড় কাঁচার ক্ষারযুক্ত সাবান দিয়ে প্রবহমান পানিতে কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ক্ষতস্থান ধুতে হবে। এতে শতকরা ৭০-৯০ ভাগ জীবাণু মারা যায়। তাছাড়া যেকোনো আয়োডিন বা অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম লাগিয়ে দিতে হবে কামড়ানো বা আঁচড় দেওয়ার 'জিরো আওয়ার'-এর মধ্যে, অর্থাৎ যত দ্রুত সম্ভব টিকা দিয়ে ঝুঁকিমুক্ত থাকতে হবে। তবে মনে রাখতে হবে চিকিৎসকই প্রয়োজনীয় চিকিৎসার উপদেশ দেবেন। কামড় যদি গভীর হয় বা রক্ত বের হয়, তবে ক্ষতস্থানে রেবিজ ইমিউনোগ্লোবিউলিনসহ (আরআইজি) অ্যান্টি রেবিস ভ্যাকসিন যত দ্রুত সম্ভব দিতে হবে। বেশি রক্তপাত হলে তা বন্ধের ব্যবস্থা নিতে হবে। সাধারণত কামড়ানোর ৯ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে জলাতঙ্কের লক্ষণ দেখা দেয়। তাই লক্ষণ প্রকাশের আগেই চিকিৎসা শুরু করতে হবে।
জাতীয় জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল কেন্দ্র 'সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল' মহাখালীতে প্রতিদিন প্রায় ৫০০ থেকে ৬০০ কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত রোগীকে সেবা দেওয়া হয়। পাশাপাশি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার উদ্যোগে ২০১১ সাল থেকে সারাদেশে ব্যাপক হারে কুকুর টিকাদান কার্যক্রম চালু হয়েছে। এসব কার্যক্রমের পাশাপাশি জলাতঙ্ক রোগ সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম ও দিবস উদযাপনের মাধ্যমে অবহিতকরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। জলাতঙ্ক রোগ সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে 'জলাতঙ্ক :ভয় নয়, সচেতনতায় জয়'- এ প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে আজ উদযাপিত হচ্ছে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস।
সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালের বার্ষিক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ২০১০ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত সারাদেশে জলাতঙ্ক রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দুই হাজার ১৪৭ থেকে এক হাজার ৪৪৫-এ নেমে এসেছে এবং সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালেও এ রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা আগের তুলনায় প্রায় ৬৮ ভাগ হ্রাস পেয়েছে। বর্তমানে চলমান এসব কার্যক্রমের পাশাপাশি কুকুরের কামড়ের আধুনিক ব্যবস্থাপনা চালু রেখে ব্যাপক হারে কুকুরের টিকাদান কর্মসূচির মাধ্যমে দেশের সকল কুকুরকে তিন রাউন্ড টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা গেলে ২০২৩ সালের মধ্যে জলাতঙ্কমুক্ত বাংলাদেশ গড়া সম্ভব হবে।
কৃষিবিদ; গণযোগাযোগ কর্মকর্তা, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্য দপ্তর, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়
alam4162@gmail.com