পূর্ববিরোধের জেরে মোবাইলে গেম খেলাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় বসতবাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। রোববার ভোরে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা সদর ইউনিয়নের বারইপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ চারজনকে আটক করেছে।

জানা যায়, বারইপাড়া গ্রামের খলিল সরদার ও হুমাউন সরদারের মধ্যে বেশ কয়েক বছর ধরে বিরোধ চলছিল। ৪ অক্টোবর মোবাইলে গেম খেলাকে কেন্দ্র করে খলিলের ছেলে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র রিফাতের সঙ্গে হুমাউনের ছেলে দশম শ্রেণির ছাত্র আবিতের কথা কাটাকাটি হয়। এর জেরে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ ঘটনায় দু’পক্ষ থেকে ওই দিনই থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দু’পক্ষকেই সংঘাতে না জড়াতে অনুরোধ করে। কিন্তু আজ সকাল ৬টায় হুমাউনের পক্ষের ৪০-৫০ জন খলিলের বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় দু’পক্ষই মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

এদিকে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে হুমাউন সরদার বলেন, খলিল সরদারের স্ত্রী নিজেদের লোকজন দিয়ে বাড়ি ভাঙচুর করে আমাদের ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন। কিছুদিন আগেও তারা আমাকে মারধর করে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ওয়াহিদুজ্জামান জানান, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলছিল। ৪ অক্টোবর বাচ্চাদের মোবাইলে গেম খেলাকে কেন্দ্র করে ফের সংঘাতের সৃষ্টি হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের সংঘাত না করতে অনুরোধ করে। আজ সকালে সংঘর্ষের খবর শুনে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে আটক করা হয়েছে।