আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি ৭ম ধাপে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার আওলাই ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। সেই নির্বাচনে স্বামী-স্ত্রীসহ সাতজন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। শেষ পর্যন্ত স্বামী-স্ত্রীসহ সাতজন প্রার্থীই প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন। প্রতীক পেয়ে কম-বেশি সবাইকে নির্বাচনের প্রচার চালাতে দেখা গেলেও স্বামীর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী স্ত্রীকে এখন পর্যন্তি মাঠে দেখা যায়নি।

এদিকে প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে নির্বাচনী এলাকায় পোস্টার টাঙ্গানো, বিতরণসহ বেশ জোরেসোরেই প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন স্বামী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী একরামুল হক চৌধুরী তাওহীদ। তার প্রতীক মোটরসাইকেল। তাওহীদের স্ত্রী নিলুফা আক্তার লিপি রজনীগন্ধা প্রতীক পেয়েছেন। তবে তিনি এখনো প্রচারে নামেননি। 

স্বামী নিজের ভোটের মাঠে নামলেও ঘরবন্দি রয়েছেন লিপি। সরেজমিনে এলাকায় তাওহীদের পোস্টার ছাড়া তার স্ত্রীর কোনো পোস্টার দেখা যায়নি। অথচ তিনি স্বামীর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী।

আওলাই ইউনিয়নের ভোটার শামছুদ্দিন বলেন, চেয়ারম্যান পদে সাতজন প্রার্থী দাঁড়িয়েছেন। তার মধ্যে স্বামী-স্ত্রী রয়েছেন। স্বামী ভোট চাচ্ছেন কিন্তু স্ত্রীকে মাঠে দেখা যায়নি। 

তিনি বলেন, ‘লিপি আপা প্রচার না চালালে কি হবে? যাকে ভালো লাগবে তাকেই ভোট দেব’।

জোবেদা বেগম নামে আরেক ভোটার বলেন, যারা চেয়ারম্যান পদে দাঁড়িয়েছেন, এখনো সবার ছবি ও মার্কা দেখিনি। শুনেছি লিপি নামে এক মহিলা দাঁড়িয়েছেন। ভোটের দিন ঠিক করব, কাকে ভোট দেব।

আওলাই বাজারের মুদি দোকানদার বাবলু মিয়া বলেন, এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী একজন দাঁড়িয়েছেন। তার স্ত্রীও দাঁড়িয়েছেন। আমরা এখন দ্বিধা-দ্বন্দ্বের মধ্যে আছি। কাকে ভোট দেব?

ধলটিকর গ্রামের বাসিন্দা ও চেয়ারম্যান প্রার্থী তাওহীদের চাচা সুজাউল ইসলাম বলেন, আমার ভাতিজা ও তার স্ত্রী চেয়ারম্যান পদে দাঁড়িয়েছে। ভাতিজা প্রচার শুরু করেছে। তবে তার স্ত্রী এখনো ভোটের মাঠে নামেনি। বাড়িতেই আছে।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী একরামুল হক চৌধুরী তাওহীদ সমকালকে বলেন, ভোটাররা যেন কেন্দ্রে এসে ভোট দিতে পারেন আমি সে সহযোগিতা কামনা করছি। 

স্ত্রীর প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই।

কথা বলতে বাসায় গেলে চেয়ারম্যান প্রার্থী নিলুফা আক্তার লিপি গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

পাঁচবিবি উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি এ উপজেলার দুইটি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কুসুম্বা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর আওলাই ইউনিয়নে সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে স্বামী-স্ত্রী প্রার্থীও রয়েছেন।