গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, সরকারের অনৈতিক নানা অপকর্মের জন্য দেশের ক্ষতি হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করতে এবং সবাইকে সোচ্চার হতে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, দেশে নৈতিকতা ফিরিয়ে আনতে হবে। অনৈতিক অপকর্ম থেকে দেশকে মুক্ত করতে হবে। দেশে আইনের শাসন, মানবিক সুরক্ষা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করুন।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নৈতিক সমাজ নামে একটি রাজনৈতিক দলের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও বিশেষ কাউন্সিলের অধিবেশনে ভার্চুয়ালি তিনি এসব কথা বলেন।

গত বছরের মার্চে জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা মেজর জেনারেল (অব.) আ ম স আ আমিন নৈতিক সমাজ নাকে নতুন একটি রাজনৈতিক দলের ঘোষণা দেন। রাজনীতিতে নীতিমান নেতৃত্ব ও নৈতিক মূল্যবোধ তৈরির উদ্দেশ্য নিয়ে এই রাজনৈতিক দল গঠন করা হয়।

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, এই সরকার নীতিহীন। এরা গায়ের জোরে ডাকাতি করে ক্ষমতা নিয়েছে। ওরা বলেছিলো না ১০ টাকা করে চাল খাওয়াবে। এখন চাল কত করে? সমস্ত জিনিসের দাম কত?

তিনি বলেন, টিসিবির ট্রাকের নিচে পেছনে লোকেরা লাইন দিচ্ছে। ট্রাক যখন চলে তার পেছনে পেছনে মানুষজন দৌঁড়াতে থাকে। তাদের লবন দরকার, আটা দরকার, তেল দরকার, চাল দরকার, পেঁয়াজ দরকার। ১৯৭৪ সালে বড় দুর্ভিক্ষ সৃষ্টি হয়েছিলো। এতোদিন পরে সেই একই দল ক্ষমতায় থাকার পরে একই দৃশ্য আমরা দেখছি।

মান্না বলেন, প্রধানমন্ত্রী যদি বলেন, জিনিসের দাম মানুষের সহ্যের মধ্যে আছে। তাহলে মানুষ যাবে কোথায়? এই নৈতিক সমাজের প্রধান আ ম সা আ আমিন একসময় আওয়ামী লীগ করতেন, এই প্রধানমন্ত্রীর এই সভানেত্রীর উপদেষ্টা ছিলেন, কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। ওই রাজনৈতিক দল ছেড়ে নতুন দল করছেন। আওয়ামী লীগ ভালো দল নয় বলেই তিনি ত্যাগ করেছেন।

বর্তমান সরকারের পতনের পর একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে আওয়ামী লীগের রেখে প্রশাসনসহ সব কিছু পাল্টাতে একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের কথাও তুলে ধরেন মান্না।

সংগঠনটির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) আ ম সা আ আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, গণ-অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর, শিল্পী কামরুন্নেসা খান নাসরিনসহ বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তিরা বক্তব্য রাখেন।