রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, তালেবানের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করছে রাশিয়া এবং আফগানিস্তানের সব জাতিগোষ্ঠী দেশটি পরিচালনায় অংশগ্রহণ করুক তা চায় রাশিয়া। 

মঙ্গলবার তাজিকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমোমালি র‌্যাহমনের সঙ্গে বৈঠকের সময় এই মন্তব্য করেন পুতিন। ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর এটাই পুতিনের প্রথম বিদেশ সফর। রাশিয়ান একটি সামরিক ঘাঁটি রয়েছে তাজিকিস্তানে। বুধবার এই খবর দিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

এ ছাড়া তাজিকিস্তানের সঙ্গে আফগানিস্তানের দীর্ঘ সীমান্তরেখা রয়েছে। তাই আফগানিস্তান থেকে ইসলামি উগ্রপন্থা তাজিকিস্তানে ঢোকার ব্যাপারে খুবই সতর্ক দেশটি। 

এদিন রাজধানী দুশানবে পুতিন বলেন, দেশের (আফগানিস্তান) পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার জন্য আমরা সবকিছু করছি।  যেসব রাজনৈতিক শক্তি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে তাদের সঙ্গে আমরা সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করছি… ইতোমধ্যে আমরা বলেছি, আমরা এই প্রতিশ্রুতি নিয়ে কাজ করছি যে সব জাতিগোষ্ঠী অবশ্যই সঠিকভাবে দেশ পরিচালনায় অংশ নেবে। 

পুতিন সম্পর্ক স্থাপনে কাজ করার কথা বললেও তালেবানকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবেই চিহ্নিত করেছে। তবে রাশিয়ায় তালেবানের প্রতিনিধি আছে এবং সম্প্রতি সেন্ট পিটার্সবার্গ ইন্টারন্যাশনাল ইকোনোমিক ফোরামে তালেবান সরকারের প্রতিনিধিদল অংশ নিয়েছে। 

এদিকে তাজিকিস্তান থেকে বুধবার একটি সম্মেলনে যোগ দিতে পুতিন তুর্কমেনিস্তানের রাজধানী আশগাবাতে যাবেন। ক্যাস্পিয়ান সাগরের উপকূলীয় দেশগুলোর নেতারা এই সম্মেলনে অংশ নেবেন।