গোদাগাড়ীতে আবারও ধানক্ষেতে সেচের জন্য কৃষককে পানি না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ডিপ টিউবওয়েল অপারেটরের বিরুদ্ধে। সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানে আলমের কাছে সোমবার এ অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী কৃষক জারমান আলী।

রিশিকুল ইউনিয়নের ঝিকড়াপাড়া গ্রামের কৃষক জারমান আলীর অভিযোগ, চলতি রোপা-আমন মৌসুমে ৪ বিঘা জমি বর্গা চাষ নিয়ে ধান চাষ করেন। চাষের পর থেকেই গোদাগাড়ীর পূর্ব বামনাইল-৭ এর স্কিমের ডিপ টিউবওয়েলের অপারেটর পশ্চিম বামনাইল গ্রামের রায়হান তাঁর জমিতে পানি দিচ্ছেন না। বিষয়টি স্থানীয় কৃষক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানালে তাঁরা অপারেটরকে পানি দিতে বলেন। কিন্তু সে কথায় কর্ণপাত করছেন না রায়হান।

জারমান আলী বলেন, ১২ বছর আগে রায়হায় একজনের জমি জবরদখল করে ভোগ করে আসছিলেন। এ ঘটনার প্রতিবাদ ও মালিককে জমি ফিরে পেতে সহযোগিতা করেছিলাম। সেই রাগ থেকে এমন হয়রানি করে থাকতে পারেন তিনি।

এ বিষয়ে ডিপ টিউবওয়েলের অপারেটর রায়হান আলী বলেন, জারমান আলী আমাকে যখন তখন গালাগাল করেন। এ ছাড়া তাঁর জমি স্কিমের আওতায় না। তাই তাঁকে পানি দেওয়া হয়নি। আমি ডিপের দায়িত্ব ছেড়ে দিলে তিনি পানি নিতে পারবেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে গোদাগাড়ী বিএমডিএ-২ জোনের সহকারী প্রকৌশলী হাবিবুল বাশার বলেন, ঘটনা তদন্তে লোক পাঠানো হয়েছে। ফিরে এলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানে আলম বলেন, অভিযোগ পেয়ে বিএমডিএর প্রকৌশলীকে বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।