দেশের বাইরে চলে যাওয়ার পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবেই সরকার বিদেশে অর্থ পাচার করছে বলে মন্তব্য করেছেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন। 

তিনি বলেন, এটা খুব দুঃখজনক। সরকার দেশের কথা না ভেবে বিদেশে অর্থ পাচার করছে। দেশের জনগণের প্রতি তাদের আস্থা নেই। তারা নিজেরাও বাইরে চলে যাবে।

বৃহস্পতিবার গণফোরামের উদ্যোগে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচি উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। রাজধানীর মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের কার্যালয়ে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়।

ড. কামাল বলেন, টাকা পাচারের ব্যাপারে সবাইকে সজাগ করতে হবে। সবাইকে সংগঠিত করে জাতীয় অর্থনীতিকে রক্ষায় পাহারা দিতে হবে। ব্যাংক থেকে কোথায় টাকা যাচ্ছে, কীভাবে যাচ্ছে- এসব বিষয়ে খোঁজখবর রাখতে হবে। প্রয়োজনে এসব অনিয়ম বন্ধ করতে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের তথ্য গুরুত্ব না দিলে জাতীয় অর্থনীতিকে বাঁচানো যাবে না উল্লেখ করে গণফোরাম সভাপতি বলেন, অর্থনৈতিক অবস্থা ভেঙে পড়লে বেকারত্ব আরো বাড়বে, আয় কমে যাবে, ব্যবসা-বাণিজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হবে, অর্থাৎ সার্বিকভাবে সবার ক্ষতি হবে। এখান থেকে উত্তরণের জন্য দ্রুত ঐক্যবদ্ধ হয়ে এসব নেতিবাচক ও সমাজবিরোধী কাজ, বিশেষ করে দুর্নীতি ও অর্থ পাচার প্রতিরোধ করতে হবে।

সব ক্ষেত্রে অব্যবস্থাপনা, দলীয়করণ ও দুর্নীতির কারণে দেশ ভয়াবহ সংকটের দিক যাচ্ছে মন্তব্য করে ড. কামাল বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ও অর্জনগুলো দেশের কিছুসংখ্যক দুর্নীতিবাজ ও স্বার্থান্বেষী মহলের জন্য বিসর্জন হতে চলছে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো দলীয়করণের সুযোগ নিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করা হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে সরকার কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেনি। এর ফলে অর্থ পাচার, লুটপাট মহামারি আকার ধারণ করছে। দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে সব রাজনৈতিক দল ও জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমৃদ্ধ ও অগ্রসরমাণ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য জাতীয় ঐকমত্য গড়ে তুলতে হবে বলেও জানান তিনি।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সদস্য পদ নবায়নের মাধ্যমে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। এ সময় গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাবেক সংসদ সদস্য মফিজুল ইসলাম খান, এস এম আলতাফ হোসেন, মোশতাক আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।