আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি কোথাও কোথাও সমাবেশ দিয়ে নাটক শুরু করে। বলে সরকার বাধা দিচ্ছে। অথচ তারা সাত দিন আগে থেকে হাঁড়ি-পাতিল, মশার কয়েল, বস্তা ভরে টাকা নিয়ে সেখানে যায়। কুমিল্লায় তো কেউ বাধা দেয়নি। আমরা রাজশাহীতে বলে দিয়েছি, পরিবহন ধর্মঘট হবে না। শেখ হাসিনা বলেছেন, ঢাকায়ও কোনো পরিবহন ধর্মঘট হবে না।

গতকাল বৃহস্পতিবার গোপালগঞ্জ শহরের পৌর পার্কে জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনে খেলা হবে। ডিসেম্বরে খেলা হবে বিএনপির আগুন আর লাঠির বিরুদ্ধে। ১০ ডিসেম্বর খেলা হবে দুর্নীতি ও ভোট চুরির বিরুদ্ধে। সরকারের পতন চেয়ে লাভ নেই।

মন্ত্রী আরও বলেন, হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে খেলা হবে। হাওয়া ভবনের আরেক নাম খাওয়া ভবন। তারেক রহমান ওয়ান-ইলেভেন সরকারের কাছে মুচলেকা দিয়ে রাজনীতি থেকে বিদায় নেওয়ার অঙ্গীকার করে লন্ডনে পাড়ি জমিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআইর কাছে ধরা খেয়েছে তারেক রহমান। সে সিঙ্গাপুরসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অর্থ পাচার করেছে। হওয়া ভবন থেকে কত টাকা পাচার হয়েছে- তার হিসাব হচ্ছে, ফেরত আনা হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচন প্রমাণ করে দেবে কারা জয়ী হবে। বাংলাদেশ এখনও অনেক দেশের চেয়ে ভালো আছে। শেখ হাসিনা যত দিন বেঁচে আছেন, বাংলাদেশ তত দিন ভালো থাকবে। শেখ হাসিনার সরকার আরেকবার দরকার।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি, বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দীন, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি প্রমুখ।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হক ও সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান। সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে মাহাবুব আলী খানকে সভাপতি ও জি এম সিহাবউদ্দিন আজমকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।