ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩

জাতিসংঘ সম্মেলন

কাশ্মীর নিয়ে আবারও কথা বললেন এরদোয়ান

কাশ্মীর নিয়ে আবারও কথা বললেন এরদোয়ান

জাতিসংঘে ভাষণ দিচ্ছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান - এএফপি

সমকাল ডেস্ক

প্রকাশ: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৭:০৯ | আপডেট: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৭:১৮

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে কাশ্মীরে দীর্ঘস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার তাগিদ দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান। মঙ্গলবার জাতিসংঘের ৭৮তম সাধারণ অধিবেশনে দেওয়া বক্তব্যে আবারও তিনি এ প্রসঙ্গে কথা বলেন।

এরদোয়ান বলেন, ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সংলাপ ও পারস্পরিক সহযোগিতার মধ্য দিয়ে কাশ্মীরে দীর্ঘস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এর মধ্য দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক শান্তি, স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধির পথ খুলবে। এ ক্ষেত্রে তুরস্ক সমর্থন জুগিয়ে যাবে। খবর রয়টার্স ও এএফপির।

সম্প্রতি নয়াদিল্লিতে জি২০ সম্মেলনে অংশ নেওয়ার ফাঁকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করেন এরদোয়ান। ওই সময় দুই নেতা বাণিজ্য এবং অবকাঠামোগত সম্পর্ক জোরদার নিয়ে আলোচনা করেন।

এদিকে রাশিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণে তিনি এই আহ্বানে বলেন— রাশিয়া বিশ্বাস করে, বিশ্ব ক্লান্ত হয়ে উঠবে এবং কোনো ধরনের ফলাফল ছাড়াই ইউক্রেনে নৃশংসতা চালানোর সুযোগ দেবে। যদি আমরা ইউক্রেনকে ধ্বংস করতে দিই, তাহলে কি কোনো দেশের স্বাধীনতা সুরক্ষিত থাকবে? এই যুদ্ধ অবিলম্বে শেষ করার ক্ষমতা আছে একমাত্র রাশিয়ার কাছে বলেন বাইডেন। 

অন্যদিকে গত কয়েক মাসে সুইডেনে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআনের কপি পোড়ানোর প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে। এমন জঘন্য ঘটনায় পশ্চিমাদের দায়ী করে নিন্দা জানিয়েছেন তুরস্ক, কাতার ও ইরানের প্রেসিডেন্ট। ভাষণে কোরআন হাতে প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইরানি প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি।

এছাড়া জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের ভাষণে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, রাশিয়ার মতো অশুভ শক্তিকে কখনও বিশ্বাস করা যায় না। ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন শেষ করতে বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। মঙ্গলবার আবেগঘন বক্তব্যে তিনি বলেন, বিশ্বকে চূড়ান্ত যুদ্ধের দিকে ঠেলে দেওয়া থেকে পরমাণু অস্ত্রে সজ্জিত মস্কোকে অবশ্যই থামাতে হবে। 

গত বছরও সাধারণ অধিবেশনে কাশ্মীর প্রসঙ্গে কথা বলেন তিনি। তখন এরদোয়ান বলেছিলেন, ‘৭৫ বছর আগে ভারত ও পাকিস্তান তাদের সার্বভৌমত্ব এবং স্বাধীনতা নিশ্চিত করলেও এখন পর্যন্ত তারা একে অপরের সঙ্গে শান্তি ও সৌহার্দ্যের সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেনি। এটা খুব দুর্ভাগ্যজনক। আমাদের আশা, কাশ্মীরে অবাধ ও দীর্ঘস্থায়ী শান্তি ও সমৃদ্ধি প্রতিষ্ঠা করা যাবে।’

এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২০ সালে সাধারণ অধিবেশনে দেওয়া ভিডিও বক্তব্যেও জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে কথা বলেছিলেন এরদোয়ান।

ভারত ওই সময় প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেছিল, তুরস্কের উচিত অন্য দেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকা এবং নিজেদের নীতিমালার দিকে আরও বেশি করে মনোনিবেশ করা।

আরও পড়ুন