নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারি ও ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিংয়ের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ভিনসেন্ট চ্যাং এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশে অবস্থানকালে দেশ দুটির শীর্ষ দুই নেতার সঙ্গে এই সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বাংলাদেশ এবং পুরো দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের শীর্ষস্থানীয় উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ভূমিকা নিয়ে আলোকপাত করেন তারা।

নেপালের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতকালে উপাচার্য ছাড়াও ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট (ইন্টারন্যাশনাল) জনাথন কার্টমেল উপস্থিত ছিলেন। তবে ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একান্তে বৈঠক করেন উপাচার্য প্রফেসর চ্যাং।

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট কার্টমেল জানান, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিতে অধ্যয়নরত নেপালি এবং ভুটানিজ শিক্ষার্থীদের স্বাগত বার্তার প্রশংসা করেছেন তারা। দেশ দুটির শিক্ষার্থীদের কাছে বাংলাদেশ উচ্চশিক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠছে বলেও দেশ দুটির শীর্ষ নেতা মন্তব্য করেছে বলে জানান তিনি।

এ সময় তারা নিজ দেশের শিক্ষার্থীদের কল্যাণ সংক্রান্ত বিভিন্ন দিক জানতে চান। ব্র্যাকের সঙ্গে নেপাল ও ভুটানের শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের মধ্যে কর্মসূচি চলমান রাখার আশাবাদও ব্যক্ত করেন তারা।

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ভিনসেন্ট চ্যাং বলেন, 'উন্নতমানের শিক্ষা, আন্তর্জাতিকীকরণের মত বিষয়ের সঙ্গে হাতে হাত রেখে এগিয়ে চলে। ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি এক্ষেত্রে তার মানদণ্ড নির্ধারণ করেছে। আমরা শিক্ষার্থীদের অভিজ্ঞতা ও তাৎপর্যপূর্ণ গবেষণা বৃদ্ধিতে সচেষ্ট হয়েছি। এসব উদ্যোগ ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিকে উচ্চশিক্ষার বৈশ্বিক মানচিত্রে জায়গা করে দিচ্ছে।' সংবাদ বিজ্ঞপ্তি