রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থ কমিটির সভা হতে দেয়নি প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের শিক্ষকরা। উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের শেষ সময়ে এসে তারা সভা আটকে দিলেন। শিক্ষকদের অভিযোগ- উপাচার্য নানা অনিয়মের মাধ্যমে বিভিন্ন টেন্ডার দিয়েছেন। যেগুলো অর্থ কমিটিতে অনুমোদন নেই। সেজন্য তিনি নতুন সভা দিয়ে সেগুলোর বৈধতা দিতে চেয়েছিলেন। এদিকে একই কারণে উপাচার্যের বাসভবনের গেটে অবস্থান নিয়েছিল ছাত্রলীগ।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, রোববার সকাল ১০টার দিকে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের বাসভবনের কার্যালয়ে অর্থ কমিটির সভা আহ্বান করা হয়। সভা আহ্বানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের ‘দুর্নীতিবিরোধী’ শিক্ষকরা। তারা উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে চান। তবে উপাচার্য দেখা করেননি। পরে তারা দুপুর ১টার দিকে উপাচার্য ভবনের সামনের লিচুতলায় সংবাদ সম্মেলণ করেন। এর আগে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে অর্থ কমিটির সভা বন্ধ করতে উপাচার্যের বাসভবনের প্রধান গেটে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তাদের কারণে কমিটির কেউ ভিসির বাড়িতে প্রবেশ করতে পারেনি বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে ‘দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষক সমাজ’র মুখপাত্র অধ্যাপক সুলতান-উল ইসলাম টিপু বলেন, চার বছর ধরে উপাচার্য নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করেছে। অর্থ কমিটির অনুমোদন না নিয়ে অবৈধভাবে অনেক অর্থ খরচ করেছে। এখন এগুলো বৈধ করতে সভা আহ্বান করেছিল। আমরা আর দুর্নীতি হতে দিতে চাই না। সেজন্য আন্দোলন করছি।

প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের স্টিয়ারিং কমিটির নির্বাচিত সদস্য অধ্যাপক এক্রাম উল্ল্যাহ বলেন, উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদ হরিলুট করেছে। সে একের পর এক অনিয়ম করে যাচ্ছে। আজকে আমরা তার সঙ্গে আলোচনায় বসতে চেয়েছিলাম কিন্তু তিনি বসেননি। আমরা তার কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থের হিসাব চাই।

প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের স্টিয়ারিং কমিটির আরেক নির্বাচিত সদস্য অধ্যাপক প্রদীপ কুমার পান্ডে বলেন, আমরা চাই বিশ্ববিদ্যালয়টি সুশৃঙ্খলভাবে চলুক। এখানকার সম্পদের সঠিক ব্যবহার হোক। সেজন্য জবাবদিহিতার প্রয়োজন। উপাচার্য ইচ্ছামতো যা তা করতে পারেন না। দলের পক্ষ থেকে তার কাছে অর্থ কমিটির এজেন্ডা জানতে চাওয়া হয়েছে। তিনি দলের সঙ্গে দেখা করেননি।

ছাত্রলীগের অবস্থান:

এদিকে রোববার সকাল সাড়ে আটটা থেকে ২০-২৫ জন নেতাকর্মী উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন। ছাত্রলীগ নেতাদের ভাষ্য, উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান তার শেষ সময় এসেছে অর্থবিষয়ক কমিটিতে বড় ধরনের অনিয়মে আশঙ্কা  করছেন। তাই তারা অর্থবিষয়ক কমিটির (এফসি) মিটিং হতে দিবে না। তারা আনুমানিক দুপুর ১২টা পর্যন্ত অবস্থান করেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ১১ জানুয়ারি চাকরির দাবিতে উপাচার্যের বাসভবনে তালা দিয়েছিল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। পরে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নির্দেশে তারা আন্দোলন স্থগিত করেন।