করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন দেশের প্রথিতযশা দার্শনিক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের ইমেরিটাস অধ্যাপক  ড. আবদুল মতীন। শুক্রবার সকাল ৬টায় রাজধানীর উত্তরার শিন শিন জাপান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়  মারা যান তিনি।  মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। বিষয়টি সমকালকে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ কে এম হারুনার রশীদ (হারুন রশীদ)।

আব্দুল মতীনকে তার গ্রামের বাড়ি ভালুকার ধিতপুরে দাফন করা হবে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই পুত্রসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার স্ত্রী হাসিনা মতীন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক।

ড. আবদুল মতীন ১৯৩৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ জেলার ভালুকায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনে বি.এ অনার্স ও ১৯৫৭ সালে এম.এ ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৬০ সালের ১ জুলাই তিনি ঢাবি দর্শন বিভাগে সিনিয়র লেকচারার হিসেবে যোগদান করেন এবং ২০০০ সালে অধ্যাপক হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।  

মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের ইমেরিটাস অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ১৯৬৮ সালে কানাডার ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম.এ এবং ১৯৬৯ সালে টরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে Correspondence Theory of Truth বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

এছাড়া ড. মতীন কমনওয়েলথ ফেলো হিসেবে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পোস্ট-ডক্টরাল গবেষণা সম্পন্ন করেন। তিনি An Outline of Philosophy, যুক্তির আলোকে, প্রতীকী যুক্তিবিদ্যা, দর্শন সাহিত্য ও সংস্কৃতি-সহ  বেশকিছু মৌলিক গবেষণা গ্রন্থ এবং অনুবাদ গ্রন্থ রচনা করেন। ‘দুই পৃথিবী’ নামক তার একটি কবিতার গ্রন্থও রয়েছে।

দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত জার্নালে তার বহু গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি Philosophy and Progress সহ বেশকিছু জার্নাল সম্পাদনা করেন এবং উচ্চতর মানববিদ্যা ও গোবিন্দ দেব গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক এবং দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন।  

অধ্যাপক আবদুল মতীনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। শুক্রবার এক শোকবাণীতে উপাচার্য আখতারুজ্জামান মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। এছাড়া, তার স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা এবং তার পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন তার সহকর্মী ও শিক্ষার্থীরা।

বিষয় : করোনা ঢাবির ইমেরিটাস আবদুল মতীন মৃত্যু

মন্তব্য করুন