২০১৯ সালের অনার্স চতুর্থ বর্ষ পরীক্ষায় যেসব শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছেন, কভিড-১৯ বিবেচনায় আগামী নভেম্বর মাসে তাদের 'বিশেষ পরীক্ষা' নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ে একাডেমিক কাউন্সিলের ৯৩তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বিভিন্ন পরীক্ষার প্রকাশিত ফলের অনুমোদন দেওয়া হয়। এ ছাড়া অনার্স প্রথম বর্ষে দেশব্যাপী ভর্তি হওয়া চার লাখ নবীন শিক্ষার্থীকে ওরিয়েন্টেশন দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে অনার্স প্রথম বর্ষে সদ্য ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের একাডেমিক ক্যালেন্ডার দেওয়া, কভিডকালীন স্বাস্থ্যঝুঁকি সম্পর্কে ধারণা দেওয়া এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনাসহ বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয় নির্ধারিত সময়ে নিজ নিজ কলেজে এই ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হবে।

অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্তসহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীকে দ্রুত টিকার আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ ছাড়া কভিডের কারণে যেসব শিক্ষার্থীর মনোবল ভেঙে পড়েছে, তাদের মনোবল ধরে রেখে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি কাটিয়ে উঠার জন্য নিয়মিত কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থার পাশাপাশি সহশিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তিনজনকে এমফিল এবং দু'জনকে পিএইচডি ডিগ্রি দিয়েছে। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউটের একাডেমিক কমিটিতে দু'জন অধ্যাপককে সদস্য হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয়।