হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ও বিশিষ্ট নাট্যকার ড. আফসার উদ্দীন মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ... রাজিউন)। শনিবার দুপুর ২টার দিকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. সোমা মুমতাজ বলেন, 'স্যার তার এক সাবেক শিক্ষার্থীর আশীর্বাদে অংশ নিতে খুলনায় গিয়েছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে শনিবার সকালে যশোর বিমানবন্দর থেকে বিমানযোগে ঢাকায় ফেরেন। বিমানবন্দরে নামার পর তার হার্টঅ্যাটাক হয়। সেখান থেকে সরাসরি তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুরে তার মৃত্যু হয়।'

তিনি আরও বলেন, 'বিকেলে স্যারের মরদেহ বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছাবে। এশার নামাজের পর ক্যাম্পাসে তার জানাজা হতে পারে।' 

অধ্যাপক ড. আফসার উদ্দীন ১৯৫৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার উত্তর জামশা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেন সপ্তম ব্যাচের এই শিক্ষার্থী। এরপর একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে 'মধ্যযুগের বাঙলা আখ্যান কাব্যের আলোকে বাংলাদেশের নৃগোষ্ঠী নাট্য' শীর্ষক অভিসন্দর্ভের জন্য পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।  

আফসার উদ্দীন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রভাষক হিসেবে শিক্ষকতা জীবন শুরু করেন। পরবর্তীতে ১৯৮৬-৮৭ শিক্ষাবর্ষে যোগ দেন বাংলাদেশের প্রথম পূর্ণাঙ্গ নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগে। বিভাগটি প্রতিষ্ঠার পেছনেও ছিল তার শ্রম। 

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই উপ-উপাচার্য চাকরি জীবনে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সভাপতি, কলা অনুষদের ডিন, প্রক্টর, সিনেট ও সিন্ডিকেটের নির্বাচিত সদস্যসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। গুণী এই অধ্যাপক ছিলেন একাধারে কবি, নাট্যকার, অনুবাদক, গবেষক ও সাহিত্য সমালোচক।