জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। তিনি বলেন, ‘বাঙালির সমাজের জন্য কবি নজরুলের ভাবাদর্শ চিরঞ্জীব হোক। আমাদের নতুন প্রজন্ম যেন কবি নজরুলের কাছ থেকে অনুপ্রেরণা পায়। শিক্ষার্থীরা যেন নজরুল চর্চায় আরও বেশি মনোযোগী হয়।’ বুধবার জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকীতে এক বার্তায় এ কথা বলেন তিনি। 

উপাচার্য বলেন, কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ব মানবতার কবি। সাম্যমন্ত্রে উজ্জীবিত এ কবি এক হাতে অস্ত্র, অন্য হাতে কলম, দুটোতেই নির্ভীক। বাংলার মাটি ও মানুষের সঙ্গে তার সখ্য সাধারণ মানুষের কবি হিসেবে তাকে অমরত্ব দিয়েছে। তিনি নিজেই বলেছেন, ‘বাংলা বাঙালির হোক’। জাতির আজ বড় প্রয়োজন নজরুল দর্শনবোধ। 

প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান বলেন, কাজী নজরুল তার কবিতা ও প্রবন্ধে শুধু এ দেশের নয়, বিশ্বের আপামর নির্যাতিত নিপীড়িত জনতার কথা বলেছেন। তার লেখনীতে উচ্চকিত হয়েছে অসাম্প্রদায়িকতার মূলমন্ত্র। 

বিবৃতিতে তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কবি কাজী নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করে এ দেশে জাতীয় কবি হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন। ভারত থেকে বাংলাদেশে নিয়ে এসে তাঁকে জাতীয় কবির মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতে মূল ভূমিকা পালন করেছেন বঙ্গবন্ধু। আর বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই এ দেশে কবির অসাম্প্রদায়িক চেতনা, বাংলা বাঙালির হোক- এই উচ্চারণ, সেটির স্বার্থকতা বাস্তবে রূপায়িত হয়েছে।  

উপাচার্য বলেন, কবি নজরুলকে কোনো নির্দিষ্ট দিনে স্মরণ নয়, সব সময়ই তাঁর ভাবাদর্শ লালন করতে হবে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আসন্ন আন্তঃকলেজ ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীরা যেন আরও বেশি নজরুলকে জানতে পারে, সেই বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া হবে। এজন্য শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানান প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান।