জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষায় ১ হাজার ৮৮৮ আসনের বিপরীতে ২ লাখ ৮৪ হাজার ৬০৫টি আবেদন জমা পড়েছে। সেই হিসাবে এ বছর প্রতি আসনের বিপরীতে প্রায় ১৫১ জন শিক্ষার্থী লড়াই করবে।

সোমবার জাবির কেন্দ্রীয় ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার (শিক্ষা) আবু হাসান এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, এ বছর কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কমিটি ১০ ইউনিট থেকে কমিয়ে পাঁচ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এর মধ্যে 'এ' ইউনিটে (গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদ এবং আইআইটি) ৪৬৬ আসনের বিপরীতে ৭৬ হাজার ৩৭৯ জন, 'বি' ইউনিটে (সমাজবিজ্ঞান ও আইন অনুষদ) ৩৮৬ আসনের বিপরীতে ৪৮ হাজার ৩৪৭ জন, 'সি' ইউনিটে (কলা ও মানবিকী অনুষদ) ৪৬৭ আসনের বিপরীতে ৫৩ হাজার ৪৩০ জন, 'ডি' ইউনিটে (জীববিজ্ঞান অনুষদ) ৩২০ আসনের বিপরীতে ২৭ হাজার ৭২৮ জন এবং 'ই' ইউনিটে (বিজনেস স্টাডিজ ও আইবিএ) ২৫০ আসনের বিপরীতে ১৮ হাজার ৭২১ জন শিক্ষার্থী আবেদন করেছে। 

তিনি আরও বলেন, ১ হাজার ৮৮৮টি আসন ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে কোটা সিস্টেম পদ্ধতি। সে অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধা কোটা- ৩৭×৪টি, নৃগোষ্ঠীদের জন্য ৩০টি, প্রতিবন্ধীদের জন্য ১৫টি সংরক্ষিত আসন রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে সংরক্ষিত পোষ্য কোটা। যা পোষ্যদের সংখ্যার উপর নির্ভর করে।

গত বছরের চেয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমে যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, এবার ৫০ ব্যাচের চেয়ে ২৩ হাজার ৩৭৩ শিক্ষার্থী কম আবেদন করেছে। এর মূল কারণ, এ বছর ইউনিট সংখ্যা পাঁচটি কমিয়ে ফেলা হয়েছে। এজন্য একই শিক্ষার্থীর একাধিক ইউনিটে আবেদন করার হার অনেক কমে গেছে।

প্রসঙ্গত, এবার ১৮ মে থেকে শুরু হয় জাবিতে বর্তি পরীক্ষার অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়া। ১৬ জুন রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত চলে অনলাইন আবেদন। জাবিতে পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ আগামী ৩১ জুলাই থেকে ১১ আগস্ট।