জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ‘বিতর্কিত’ শিফট পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে এক ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থী অনশন করছেন।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে ‘একক প্রশ্নপত্রে মূল্যায়ন চাই’ প্ল্যাকার্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশের পাদদেশে অনশন শুরু করেন ওই পরীক্ষার্থী।

অনশনকারী পরীক্ষার্থীর নাম শোভন রায়। তার বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায়। তিনি এবার 'বি' দ্বিতীয় ও 'সি' ইউনিটে চতুর্থ শিফটে পরীক্ষা দিয়েছেন। 'বি' ইউনিটের ফলাফল প্রকাশর পর শোভন অকৃতকার্য হয়েছেন শুনে এই অনশনের সিদ্ধান্ত নেন।

শোভন বলেন, ‘জাহাঙ্গীরনগরে ভর্তি পরীক্ষার যে 'শিফট' পদ্ধতি এটা একধরনের বৈষম্য। এতে কোনোভাবেই শিক্ষার্থীর মেধার সঠিক যাচাই হয় না। কোনো শিফটের পরীক্ষা সবচেয়ে সহজ হয় আবার কোনো শিফটে পরীক্ষা অনেক কঠিন হয়। এতে কোনো শিফট থেকে অনেক বেশি শিক্ষার্থী চান্স পায় আর অন্য শিফট থেকে কম চান্স পায়। আমি চাই বিশ্ববিদ্যালয়ের যে শিফট পদ্ধতিতে পরীক্ষা হয় এটা বাতিল করা হোক।’

শোভন রায়কে সমর্থন জানিয়ে 'এ' ইউনিটের এক ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থী বলেন, 'এখানকার শিফট পদ্ধতির মতো পরীক্ষা দেশের আর কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে হয় না। এটা কেন? এটার মাধ্যমে কী সব শিক্ষার্থীকে এক মাপকাঠিতে যাচাই করা হচ্ছে? না। তাহলে এরকম বৈষম্য আমরা মেনে নিতে পারি না। আমরা চাই, শিফট পদ্ধতি বাতিল করা হোক। সবাইকে একক প্রশ্নে মূল্যায়ন করা হোক।’

অনশনের বিষয়ে জানতে চাইলে শোভন রায় বলেন, ‘আমি সকাল থেকে এখনও কিচ্ছু খাইনি। শুধু একটু পানি খেয়েছি। আমি অনশন করছি ঠিকআছে। কিন্তু আমিতো এখানে থাকতে আসিনি। যতক্ষণ পারি অনশন চালিয়ে যাব। আমি মূলত চাই, একক প্রশ্নপত্রে মূল্যায়নটা করা হোক।’

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য উপাচার্য অধ্যাপক ড. নূরুল আলমকে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভড করেননি।