সমাজের প্রতিচ্ছবি দেখিয়ে প্রশংসিত 'ভাইয়া'

প্রকাশ: ১৫ জুন ২০১৯     আপডেট: ১৫ জুন ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

গৎবাঁধা গল্প, হাস্যকর সংলাপ আর মানহীন অভিনয়ের বিপরীতে এসে দর্শকদের অন্য এক ধাঁচের গল্প দেখিয়ে প্রশংসা পাচ্ছে ঈদের নাটক 'ভাইয়া'।

সাজ্জাদ সুমনের পরিচালনায় আফরান নিশো আর মেহজাবিনকে ঘিরে মূল গল্প এগিয়েছে নাটকটির। ইগল মিউজিকের ইউটিউব চ্যানেলে রিলিজ হওয়ার পর থেকেই ব্যাপক সাড়া ফেলেছে এটি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রশংসা পেয়েছে 'ভাইয়া'। দর্শকরা সমাজের প্রতিচ্ছবি খুঁজে পেয়েছেন এই নাটকে।

পরিচালক বলছেন, এটি আসলে নাটক না বরং এই সামজেরই গল্প। খুব সহজ সরল ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে জীবন বাস্তবতা। এর মাধ্যমে সমাজে ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে শক্ত হয়ে দাঁড়ানোর একটা ম্যাসেজ পাচ্ছে মানুষ। মানসিক শক্তিটা সঞ্চয় করার একটা অনুপ্রেরণাও এই গল্প।

গল্পের বর্ণনায় দেখা যায়, শুরুতে এক পরিবারে ভাই-বোনের মধ্যে একটি মধুর সম্পর্ক। কীভাবে বোনকে একজন ভাই আগলে রাখেন, পড়াশোনা করান সেসব প্রসঙ্গও উঠে এসেছে এতে। তবে হঠাৎ এর মাঝে বাঁধ সাধে ইভটিজিং নামক সামাজিক ব্যাধি।

সমাজে ইভটিজিংয়ের শিকার মেয়টিকে দোষারোপ করা হয়। সাধারণত কেউ পাশে দাঁড়াতে চায় না তার। তবে 'ভাইয়া'তে ভাই প্রথমে ভুল বুঝেলেও ভুল ভাঙতে দেরি হয় না তার। বোনের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে জীবনটাই দিতে হয় ভাইকে।

পরিচালক সাজ্জাদের মতে, এই সময়ের একটি কনটেন্ট এটি। দেখা যায় ইভটিজিংয়ের শিকার মেয়েটি পক্ষে কেউ দাঁড়াতে চায় না। মেয়েটিও বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চায়না। ভাই-ই এসে দাঁড়ায়।

তিনি বলেন, আমরা শুধু বর্তমান সময়ের ঘটে যাওয়া ঘটনাটা দেখাতে চেয়েছি। এসব ঘটনার পরে ব্যবস্থা গ্রহণের দায়িত্ব সরকার ও প্রশাসনের।

মেজবাহ উদ্দিন সুমনের গল্পে নির্মিত 'ভাইয়া' নাটকে আরও অভিনয় করেছেন নিকুল কুমার মন্ডল, তুতিয়া রহমান পাপিয়া প্রমুখ।

নির্মাতা সাজ্জাদ সুমনের 'ভাইয়া' ছাড়াও 'প্রাঙ্ক লাভ', 'ময়ূরি শক দেয়' (আরটিভি), 'শ্যাডো' (আরটিভি)' ও 'নটিফরটি' (চ্যানেল আই) নাটক প্রচার হয়েছে এবারের ঈদে। এগুলোও প্রশংসা পেয়েছে দর্শকদের।

গত বছরের ঈদের নাটক হিসেবে ব্যাপক প্রশংসিত 'কলুর বলদ-২' নিয়েও নতুন সিক্যুয়্যল আনার চিন্তা ভাবনা করছেন পরিচালক সাজ্জাদ সুমন। এই মুহূর্তে তিনি  ব্যস্ত রয়েছেন আগামী ঈদের জন্য নির্মাণ করতে যাওয়া নাটক 'স্যান্ডেল-২' ও 'মোকলেছ-২' নিয়ে।