উত্তরাধিকারের লড়াই

প্রকাশ: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

বিনোদন ডেস্ক

'রাজনীতিতে থাকতে হলে বাঘের মতোই জীবন বেছে নিতে হয়, একবার রাজনীতিতে নেমে পড়লে জীবনের পরোয়া করলে হয় না।' এমনটাই মনে করেন বলদেব প্রতাপ সিং। রাজনীতির এ লড়াই করতে করতে একদিন নিজের পরিবারের রাজনীতির গেরোতেই আটকা পড়েন বলদেব প্রতাপ সিং। বাবার পরে রাজনৈতিক উত্তরাধিকারে দুই ছেলের লড়াইয়ে কাকে বেছে নেবেন বলদেব? শুরু হয় পারিবারিক টানাপড়েন। উত্তরাধিকারের রাজনৈতিক পটভূমি নিয়ে নির্মিত হয়েছে 'প্রস্থানম'। ছবিতে বলদেব প্রতাপ সিং চরিত্রে অভিনয় করছেন সঞ্জয় দত্ত। সিনেমায় তাকে দেখা যাবে একজন প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক নেতা হিসেবে।

এটি ২০১০ সালে মুক্তি পাওয়া তেলুগু ছবি 'প্রস্থানম'-এর অফিসিয়াল হিন্দি রিমেক। 'প্রস্থানম' ছবিতে শুধু অভিনয়ই করেই ক্ষান্ত থাকেননি সঞ্জয় দত্ত। বরং, একজন দায়িত্ববান প্রযোজকের ভূমিকাও সামলেছেন স্ত্রী মান্যতা দত্তের সঙ্গে। ছবিটি পরিচালনা করছেন দক্ষিণী পরিচালক দেবা কাট্টা। 'অধিকার দিলে রামায়ণ শুরু হবে, আর তা ছিনিয়ে নিলে মহাভারত' ছবির টিজার শুরুর এই সংলাপই কাহিনীর প্রেক্ষাপট তুলে ধরার জন্য যথেষ্ট। জটিল এক রাজনৈতিক পরিস্থিতি। যে কাহিনীতে রাজনৈতিক ময়দানের প্রতিশোধ এবং পরম্পরা বজায় রাখার গল্প তুলে ধরা হয়েছে। এই কাহিনী ক্ষমতা, লোভ, নৈতিকতা এবং আকাঙ্ক্ষার। 'প্রস্থানম' ছবিতে সঞ্জয় দত্তের বিপরীতে আরেক হেভিওয়েট চরিত্র হিসেবে রয়েছেন জ্যাকি শ্রফ। ফলে প্রায় এক যুগ পর তাদের দু'জনকে দেখা যাবে। সঞ্জয় দত্ত এবং জ্যাকি শ্রফের কাজের সম্পর্ক যেমন দীর্ঘদিনের, ঠিক তেমনি পর্দার বাইরেও তাদের বন্ধুত্বও দীর্ঘদিনের। সঞ্জয়ের সঙ্গে এই বন্ধুত্বের কথা মাথায় রেখেই এই ছবিতে জ্যাকিকে অভিনয়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়। এটি এই জুটির ১০ নম্বর ছবি। ছবির পরিচালক দেবা কাট্টা বলেন, 'বলিউডের এই দুই প্রবীণ অভিনেতার সঙ্গে কাজের এটা একটা বড় সুযোগ। জ্যাকি শ্রফ আর সঞ্জয় দত্ত তাদের বাস্তব জীবনের বন্ধুত্বের চেহারাটা এবার পর্দায় তুলে এনেছেন। যা দর্শকদের কাছে বেশ ভালো লাগবে।' ছবি প্রসঙ্গে প্রযোজক মান্যতা জানান, 'প্রস্থানম'-এর মতো একটা ভালো প্রজেক্ট দিয়েই হিন্দি ছবির প্রযোজনা শুরু করতে পেরে ভীষণ গর্ব বোধ করছি। বেশ রোমাঞ্চকর ছবি। সঞ্জুকে এত ভালোবাসা এবং সমর্থন করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ সকলকে।'

নব্বইয়ের দশকে জুটি বেঁধে বহু হিট সিনেমা উপহার দিয়েছেন বলিউড অভিনেতা সঞ্জয় দত্ত ও অভিনেত্রী মনীষা কৈরালা। ২০০৮ সালে 'মেহবুবা' ছবিতে শেষ তাদের একসঙ্গে অভিনয় করতে দেখা যায়। সেই হিসেবে এক দশক পর আবারও জুটি বেঁধে বড় পর্দায় হাজির হচ্ছেন সঞ্জয়-মনীষা। যদিও ক্যান্সার জয় করে সঞ্জয় দত্তের বায়োপিক 'সঞ্জু' ছবির মাধ্যমে মনীষার প্রত্যাবর্তন ঘটে। মনীষা জানালেন, 'সঞ্জু' ছবিতে অভিনয়ের পর অনেকেই আমাকে নিয়ে ছবি করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু গল্প ও চরিত্র পছন্দ না হওয়ায় রাজি হইনি। এরপর হাতে এলো 'প্রস্থানম'। এখানে আমার আর সঞ্জয়ের রসায়ন দর্শকদের বেশ পছন্দ হবে।'

'প্রস্থানম' ছবির গল্প লিখেছেন ফারহাদ সামজি। সঞ্জয় ও মনীষা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'এই দুই মেধাবী অভিনেতার অভিনয় দেখে আমার বেড়ে ওঠা। কিন্তু 'প্রস্থানম' সিনেমায় তাদের অভিনেতা হিসেবে নয়, দুটি চরিত্র হিসেবে দর্শক দেখতে পাবেন, যাদের রয়েছে সম্পর্কে টানাপড়েন রয়েছে এবং পুরো গল্প তাদের ঘিরেই। পাশাপাশি এটা বলতে পারি, আমাদের এই ছবির প্রতিটি চরিত্রই একে অপরের পরিপূরক। এতে আরও অভিনয় করেছেন চাঙ্কি পান্ডে, সত্যজিৎ দুবে, আমাইরা দস্তুর প্রমুখ। এই ছবির মাধ্যমে বেশ কয়েক বছর পর আবারও খলনায়কের ভূমিকায় দেখা যাবে চাঙ্কি পান্ডেকে। ছবির ট্রেলার প্রকাশ হওয়ার পর নিজের টুইটারের এই অভিনেতা লেখান 'উত্তরাধিকারের লড়াইয়ের যুদ্ধ শুরু।' ছবিটি আগামীকাল ভারতজুড়ে মুক্তি পাবে। 'প্রস্থানম' ছাড়াও আশুতোষ গোয়ারিকরের 'পানিপথ' এবং 'ভুজ : দ্য প্রাইড অব ইন্ডিয়া' ছবিতেও দেখা যাবে সঞ্জয়কে। সম্প্রতি ষাট বছরে পা দিয়েছেন বলিউডের 'ব্যাড বয়' সঞ্জুবাবা। সেসঙ্গে দর্শকদের উপহার হিসেবে প্রকাশ্যে এনেছেন দু'দুটি নতুন ছবির খবর। একটি 'কেজিএফ : চ্যাপ্টার ২'। এই ছবির মাধ্যমে তিনি পদার্পণ করতে চলেছেন দক্ষিণী বিনোদন দুনিয়ায়। 'কেজিএফ: চ্যাপ্টার ২'-তে অধিরা নামে এক খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। 'কেজিএফ : চ্যাপ্টার ২'-এর চরিত্রটি প্রসঙ্গে সঞ্জয় জানান, 'অধিরা'র চরিত্রটি আদতে অ্যাভেঞ্জার সিরিজের থ্যানোসের মতোই।