চুমকী বার্তা

প্রকাশ: ৩১ অক্টোবর ২০১৯      

সমু প্রীতম

'ভীষণ চটপটে স্বভাবের আমি। ছোটবেলা থেকেই এমন স্বভাবের। সে জন্য যে কোনো কাজেই আমি দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারি।' নিজের সম্পর্কে এভাবেই বলছিলেন মডেল ও অভিনেত্রী নাজনীন হাসান চুমকী। তার যাত্রাটা শুরু হয়েছিল মঞ্চের মাধ্যমে। এখন তা ডালপালা বিস্তার করেছে। টিভি নাটকে অভিনয়, নির্দেশনা, গান রচনা- যে কোনো মাধ্যমে তিনি ভীষণ সাবলীল। তবে টিভি নাটকের মতো মঞ্চে ততটা নিয়মিত নন। টিভি নাটকের ব্যস্ততায় চুমকীকে মঞ্চে নিয়মিত দেখা যাবে কী? নাকি নিজের ভালোলাগার কথা ভেবে মাঝে মাঝে পা রাখবে মঞ্চে? এর উত্তরে চুমকী বলেন, 'মঞ্চের প্রতি ভালোলাগা সবসময়ই ছিল। মানছি, টিভি নাটকের ব্যস্ততার কারণে মাঝে নিয়মিত মঞ্চে কাজ করা হয়ে ওঠেনি। কিন্তু এখন যথেষ্ট সময় দিচ্ছি। টেলিভিশনের হাজারো ব্যস্ততাকে পাশ কাটিয়ে মঞ্চের জন্য আলাদা করে সময় দিচ্ছি।' চুমকীর এ কথাটা যে মিথ্যা নয়, তার প্রমাণ পাওয়া গেল দেশ নাটক প্রযোজিত নিত্যপুরাণের শততম মঞ্চায়নে অভিনয়ের মাধ্যমে।

তিনি এ নাটকে এখন প্রায় নিয়মিত অভিনয় করে যাচ্ছেন। শততম প্রদর্শনীতে অভিনয় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'নাটকটি একটা সময় অনেক জনপ্রিয় ছিল। এমন অনেক দর্শক আছেন, যারা ২০ থেকে ৩০ বারও আমাদের শো দেখেছেন। সে সব মানুষই আমাকে তাগিদ দিয়ে আসছিলেন এত বছর। এরপর ২০১২ সালে দিলীপদা যখন মারা যান, তখন আমরা ভেবে নিয়েছি এ নাটক আর মঞ্চে তোলা কখনও সম্ভব নয়। কারণ ওনার মতো শক্তিমান অভিনেতা কিংবা একলব্য চরিত্রে অভিনয় করার মতো মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। যা হোক, এসব দ্বিধাদ্বন্দ্ব নিয়ে দিলীপদার মৃত্যুবার্ষিকীতে আমরা মনে শক্তি জোগাই। সিদ্ধান্ত নিই তাকে স্মরণ করে হলেও নাটকটি ফের মঞ্চে আনা প্রয়োজন। সেই দীর্ঘ বিরতি ভেঙে ২০১৭ সালের ১০ নভেম্বর বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পরীক্ষণ থিয়েটার মিলনায়তনে নাটকটি পুনরায় মঞ্চস্থ হয়। এক-দুই করে শততম রজনীও পার করে নিত্যপুরাণ। এ নাটকের অংশ হতে পেরে ভীষণ গর্বিত। শততম প্রদর্শনীতে পারফর্ম করাও আমার জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

এমন কথায় বোঝা যাচ্ছে, নাজনীন চুমকী মঞ্চে আগের চেয়ে এখন বেশ কিছুটা সময় ব্যয় করছেন। তাই বলে টিভি নাটকে কাজ কমিয়ে দিচ্ছেন- এটা ভাবলে ভুল হবে। বাজেট স্বল্পতায় যখন ভালো নাটকের সংখ্যা কমে যাচ্ছে, এমনই এক সময় ভিন্ন ধাঁচের কিছু কাজ করার সাহস দেখিয়েছেন এই অভিনেত্রী ও নির্মাতা। নিজের কাহিনী ও পরিচালনায় নির্মাণ করেছেন ধারাবাহিক। তিনি বলেন, 'অনেক সীমাবদ্ধতার মাঝেও ভালো কিছু করার চেষ্টা সবসময়ই ছিল। আমি বিশ্বাস করি, ভিন্ন ধাঁচের গল্প আর নির্মাণের মধ্য দিয়ে দর্শকের মনে দাগ কাটা যায়। এই বিশ্বাস থেকেই চেষ্টা করে যাচ্ছি, ভিন্ন ধাঁচের কাজের মধ্য দিয়ে দর্শকের কাছাকাছি যাওয়ার। একই সঙ্গে অভিনয় দিয়েও কুড়াতে চাই সবার ভালোবাসা। এটুকু চাওয়া নিশ্চয় বেশি কিছু নয়।'

হ্যাঁ, নাজনীন চুমকীর কথা ধরেই বলতে হয় মানুষের ইচ্ছার পরিধি তার জীবনের চেয়েও বড়। তাই ইচ্ছার পালে বাঁধ না দিয়ে তিনি বরং এগিয়ে চলছেন দূরন্ত গতিতে। সম্প্রতি গীতিকারের তকমাও লেগেছে তার নামের সঙ্গে। চুমকীর লেখা 'শোন তোমাকে বলছি' শিরোনামের এই গানটিতে কণ্ঠ ও সুর দিয়েছেন শাহেদ নাজির হেডিস। সংগীতায়োজন করেছেন যৌথভাবে শাহেদ নাজির হেডিস ও সনু সৌরভ। প্রথম গান লেখা প্রসঙ্গে চুমকী বলেন, 'শাহেদ নাজির হেডিস আমাদের দলের সদস্য। সে ভালো গায়, মিউজিক করে। তো আমাকে বলছিল, 'আপা কিছু লেখেন, সুর করি'। আমি প্রায়ই ছোট ছোট লেখা মোবাইলে নোট করি, তেমনি দুটো লেখা ওকে পাঠাই। সে খুব পছন্দ করে, সেগুলোর সুর করা শুরু করে। এর মধ্যে 'পিঁউ, একটি পাখির নাম' নাটকটি নির্মাণ শুরু করেছিলাম। শাহেদকে বলি নাটকের ব্যাকগ্রাউন্ড করার জন্য। নাটকটির ফুটেজ দেখে আর গল্প শুনে শাহেদ হুট করে সিদ্ধান্ত নেয়, আমার লেখা দুটি গানের একটি নাটকটির কাহিনীর সঙ্গে মিলে যায় অনেকাংশে, শুধু কয়েকটি লাইন রি-রাইট করলেই হবে! এরপর রি-রাইট করে সুর, সংগীতায়োজন হলো। দেখলাম, সেটি সত্যি সত্যি গান হয়ে গেল! আমি বিস্মিত। গীতিকার না হয়েও গান লিখে ফেললাম? একটু অস্বস্তিও লাগছিল আমার। তবে অনেকে শুনে গানটির প্রশংসা করেছেন।'

চলচ্চিত্রেও রয়েছে তার পদচারণা। 'লালন', 'ঘানি' এবং 'একই বৃত্তে' চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন নাজনীন হাসান চুমকী। তিনি 'ঘানি' চলচ্চিত্রে 'ময়না' চরিত্রে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য ২০০৬ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

বেশ বিরতির পর গত বছর 'দাহকাল' নামে একটি ছবির কাজ শুরু করেছেন চুমকী। কাহিনী, চিত্রনাট্যের পাশাপাশি ছবিটি পরিচালনা করছেন ধ্রুব হাসান। গত বছরের শেষের দিকে এর শুটিং শুরু হয়েছিল। প্রায় অর্ধেকের বেশি কাজ হয়েছে ছবির। এ ছবিতে চুমকীকে একটি বিশেষ চরিত্রে দেখা যাবে। তার চরিত্রের নাম মিলি। ছবির কাহিনীর ১৯৭০ সালের ফ্যাশন সচেতন একজন নারীর চরিত্রে তিনি অভিনয় করেছেন। বর্তমানে টিভি নাটক নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে তার। দীপ্ত টিভিতে চুমকী অভিনীত এবং গোলাম সোহরাব দোদুল পরিচালিত 'ভালোবাসার আলো আঁধার' ধারাবাহিক নাটকটির প্রচার চলছে'। এতে রাইসা চরিত্রে অভিনয় করছেন চুমকী। এ ছাড়া অরণ্য আনোয়ারের পরিচালনায় 'ফুল এইচডি' ধারাবাহিকেও অভিনয় করছেন তিনি। আর দেশ নাটকের মাধ্যমে মঞ্চেও নিয়মিত চুমকী। শিগগিরই এ দলের 'জল বাসর' নামের নতুন একটি নাটকে অভিনয় করবেন বলে জানিয়েছেন। মাসুম রেজার নির্দেশনায় নাটকটি শিগগিরই মঞ্চে আসবে।