নতুন ছবির অনুদান চেয়েও পাইনি: তৌকীর

প্রকাশ: ১৯ নভেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৯      

এমদাদুল হক মিল্টন

তৌকীর আহমেদ

 তৌকীর আহমেদ। বরেণ্য অভিনেতা ও নির্মাতা। এনটিভিতে শুরু হয়েছে তার অভিনীত ধারাবাহিক নাটক 'রূপ'। এ ধারাবাহিক ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হলোতার সঙ্গে-

গল্প ও চরিত্রের দিক থেকে 'রূপ' ধারাবাহিকটি কতটা ভিন্নধর্মী?

'রূপ' কিছুটা হলেও ভিন্ন ধাঁচের নাটক। বেশ বিরতির পর এ ধারাবাহিকে অভিনয় করেছি। দুই বছর আগে এর শুটিং করেছিলাম। এটা ভালো গল্পের চিত্রায়ণ। দেশ ও দেশের বাইরের অনেক লোকেশনের এর শুটিং হয়েছে। আমরা সধারণত যে ধরনের নাটকে অভিনয় করি, তা কোনো না কোনো সমাজের গল্প নিয়ে করা হয়। এটি একটু ব্যতিক্রম। নাটকটি দেখলে সহজেই দর্শক বুঝতে পারবেন।

নাটকটি নিয়ে দর্শক কী বলছেন?

এরই মধ্যে নাটকের কয়েকটি পর্ব প্রচার হয়েছে। এতে অভিনয় করে আমি নিজেও বেশ তৃপ্ত। দর্শকের কাছ থেকে ইতিবাচক মন্তব্য পাওয়ায় মনে হচ্ছে চরিত্রটি পর্দায় যেভাবে তুলে ধরতে চেয়েছি, তা কিছুটা হলেও পেরেছি।

প্রথমবার 'ব্ল্যাকমেইল' ওয়েব সিরিজে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

বেশ ভালো। এ মাধ্যমে নির্মাণে বেশ কিছু পার্থক্য থাকলেও অভিনয়ের তো তেমন একটা গুণগত পার্থক্য নেই বলে আমি মনে করি। মঞ্চ, টেলিভিশন, ওয়েব সিরিজ কিংবা চলচ্চিত্র- যে কোনো মাধ্যমে একজন অভিনেতাকে চরিত্র অনুযায়ী অভিনয় করতে হয়। থ্রিলার ধরনের গল্প নিয়ে ওয়েব সিরিজে আমার অভিনীত পুলিশ চরিত্রে সে চেষ্টাই করেছি। সেই অফিসারের বাড়িতে আচমকা সন্ত্রাসী ঘটনা নিয়েই ওয়েব সিরিজটির গল্প সাজানো। এতে অনেক বাঁক রয়েছে। এটি পরিচালনা করেছেন আর বি প্রীতম। আর এতে আমার সহশিল্পী ছিলেন নুসরাত ইমরোজ তিশা।

নতুন ছবি নিয়ে কোনো পরিকল্পনা করেছেন?

ছবির জন্য অনুদান চেয়েছিলাম, পাইনি। ফান্ড জোগাড় হলেই নতুন ছবির কাজ শুরু করব। হয়তো শিগগির এ বিষয়ে ঘোষণা দিতে পারব।

মঞ্চে আবার আপনাকে দেখা যাবে?

টিভি মিডিয়া ও সিনেমা নির্মাণের কাজ নিয়েই ব্যস্ত। যে জন্য মঞ্চে সময় দেওয়ার সুযোগ কম। মঞ্চে নিয়মিত না কাজ করলেও এ মাধমের সঙ্গে আমার নিবিড় যোগাযোগ রয়েছে। মঞ্চের জন্য নতুন নাটক লিখেছি। নাটকেন্দ্রের প্রযোজনা এটি। নাম এখনও চূড়ান্ত হয়নি। এ ব্যাপারে এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে চাই না।

'বিউটি সার্কাস' ছবির কাজ কত দূর?

এ ছবির কাজ শেষই হচ্ছে না। এভাবে যদি একটি ছবি মুক্তি দীর্ঘায়িত হতে থাকে, সেটার প্রতি সবার আগ্রহ ও সম্ভাবনা কমতে থাকে। এর কাজ শেষ হওয়া জরুরি।

মিডিয়ার বর্তমান অবস্থাকে আপনি কীভাবে দেখছেন?

মিডিয়ার জন্য মোটেও ভালো সময় যাচ্ছে না। এ সংকট কত দিনে কাটবে তা বলতে পারছি না। প্রোডাকশন, বাজেট থেকে শুরু করে সবকিছু মিলিয়ে সার্বিকভাবে অস্থির অবস্থা যাচ্ছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে এগিয়ে আসতে হবে। যাদের হাতে নিয়ন্ত্রণ তাদের বেশি ভূমিকা রাখা উচিত। মিডিয়াকে শুধু বাণিজ্য হিসেবে দেখলে ভুল হবে। মিডিয়ার ভূমিকা সমাজে থাকা উচিত। সে জায়গায় আমাদের দৃষ্টিপাত করা দরকার।

সেরা চিত্রনাট্যকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন। কেমন লাগছে?

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার সব সময় আনন্দের বিষয়। এটি রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি। 'হালদা' ছবির জন্য এ প্রাপ্তি। এ ছবিটি অন্যান্য শাখায়ও কয়েকটি পুরস্কার লাভ করেছে। এ সাফল্যের অংশীদার সবাই। সবমিলিয়ে ভালোই লাগছে।