বেআইনিভাবে বাংলাদেশে কাজ করবো না: দেব

প্রকাশ: ২৭ নভেম্বর ২০১৯     আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২০১৯   

বিনোদন প্রতিবেদক

দেব

দেব

টলিউড ইন্ডাষ্ট্রির জনপ্রিয় নায়ক দেব। সম্প্রতি কলকাতায় মুক্তি পায় তার অভিনীত ও প্রযোজিত ছবি ‘পাসওয়ার্ড’। এবার সেই ছবিটিই সাফটা চুক্তির আওতায় মুক্তি পাচ্ছে বাংলাদেশে। ছবিটির মুক্তি উপলক্ষেই মঙ্গলবার কলকাতা থেকে ঢাকায় নায়িকা রুক্মিণীকে নিয়ে উড়েন আসেন দেব। সঙ্গে আসেন পাসওয়ার্ডের পরিচালক কমলেশ্বর মুখার্জিও।

বাংলাদেশে পাসওয়ার্ড আমদানি করছে শাপলা মিডিয়া। গতকাল রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে ছবিটি নিয়েই অনুষ্ঠিত হয় ‘মিট দ্য প্রেস’। সেখানেই হাজির হন দেব ও রুক্মিণী। এর মধ্যে দিয়ে প্রথমবার আনুষ্ঠানিকভাবে ঢাকার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন দেব। সেখানে সাংবাদিকদের প্রশ্ন-উত্তর পর্বের আগে বাংলাদেশের একক প্রযোজিত ছবিতে অভিনয়ের কথাও ঘোষণাও দেন তিনি। ছবির নাম ‘মিশন সিক্সটিন’। 

তার আগে মঞ্চে দাঁড়িযে দেব বলেন, আমি সবসময় বলে থাকি এবং বিশ্বাসও করি বাংলাদেশ আমার দ্বিতীয় বাড়ি। কারণ যতবারই বাংলাদেশে এসেছি এখানকার মানুষ আমাকে এতোটাই ভালোবাসা দিয়েছে যে আমি মু্গ্ধ। 

দেব বলেন, বাংলাদেশের সিনেমায় অভিনয়ের ইচ্ছে ছিল। কিন্তু মনের মতো প্রস্তাব পাইনি। বেশিরভাগ প্রস্তাব ছিল যৌথ প্রযোজনার। কিন্তু আমি চাইছি কমপ্লিট বাংলাদেশের ছবি করতে। কারণ, দেশটির প্রতি আমার আজন্ম মুগ্ধতা। অবশেষে সুযোগটা এলো। শুটিং শুরু হবে শিগগিরই। পুরো টিম থাকবে বাংলাদেশের, আমি শুধু থাকবো কলকাতার।

পরে শুরু হয় প্রশ্ন-উত্তর পর্ব। তখন সাংবাদিক এফ আই দীপু প্রশ্ন করেন, ‘মিশন সিক্সটিন’ সিনেমাটি প্রযোজনা করছে শাপলা মিডিয়া। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধারের বিরুদ্ধে ক্যাসিনো ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগ আছে। শাকিব খান নিজেই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি ছেড়েছেন। সেখানে আপনার জন্য এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করাটা কতটা সম্মানের হবে?

উত্তরে দেব বলেন, আমি যতদূর জানি এখানকার আইন বেশ শক্তিশালী। আমি সিনেমাপ্রেমী লোক, গল্পটা আমার বেশ ভালো লেগেছে। কাজ করতে বেশ ভালো লাগবে আশা করি। আমিও একটি দেশের পার্লামেন্ট সদস‌্য। আমি বাংলাদেশে বেআইনিভাবে কোনো কাজ করবো না।

এমন প্রশ্নের পর দেবের কাছে জানতে চাওয়া হয় যেখানে ‘পাসওয়ার্ড’ কলকাতায় সাফল্য পায়নি, আপনি কেন মনে করছেন ছবিটি এখানকার মানুষ দেখবে? দেব সহজ করেই উত্তর দেন। বলেন, আমি বলিনি সিনেমাটি সাফল্য পাবে। যে কোনো অভিনেতা, প্রযোজক ও পরিচালক চেষ্টা করে মানুষ যাতে ছবিটি হলে গিয়ে দেখে। আমাদের বুড়ো আঙুলের তলায় পাঁচশটি চ্যানেল রয়েছে, চাইলেই যে কোনো ভাষার ছবি দর্শকরা দেখতে পারছে। তারপর তুলনা করতে হবে আমরা কোথায় আছি। আমরা যখন ভারতে বসে দেখি বাহুবলি আমাদের দেশেই নির্মাণ হচ্ছে, কিন্তু আমরা কেন বানাতে পারি না? তখন অনেক কষ্ট হয়। সে জন‌্য হয়তো আমি ‘হবু চন্দ্র গবু চন্দ্র প্রযোজনা’ করলাম। যখন ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটির টিজার দেখবেন তখন বুঝতে পারবেন ছবিটি কেন আমি প্রযোজনা করেছি।

আমরা যখন অন‌্যভাষার ছবিগুলো দেখি- কী সুন্দর কনসেপ্ট নিয়ে ছবি বানাচ্ছে, সেখানে আমরা অনেকটাই পিছিয়ে আছি। সব সময় যদি সাফল্য নিয়ে ভাবি তাহলে আমরা সারা জীবন রিমেক ছবিই করতে থাকবো। আমরা যদি সাহস না দেখাই তাহলে আমাদের ইন্ড্রাস্টি কখনো বড় হবে না। একই ধাঁচে, একই জায়গায় থেকে যাবো। সেই জায়গা থেকে বলবো, আগে হলে এগে ছবিটি মানুষ দেখুক। তারপর বিচার করুন ছবিটি ভালো না খারাপ। আর নিজের কাছেই আমার অনেক ছবি মনে হয়েছে ভালো হয়নি, কিন্তু বক্স অফিসে হিট হয়েছে। সব ছবির বিচার যদি বক্স অফিস দিয়ে হয় তাহলে কেউ সামনে এগোতে পারবে না।

পরিশেষে দেব ঢাকা ও কলকাতায়  একসঙ্গে ছবি মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানান। বিষয়টি যত দ্রুত সম্ভব হবে ততটাই আমাদের বাংলা ছবির জন্য মঙ্গল হবে বলেও জানান দেব।