আমার কাজের একটা লিমিট আছে: চঞ্চল চৌধুরী

প্রকাশ: ১৭ জানুয়ারি ২০২০     আপডেট: ১৭ জানুয়ারি ২০২০       প্রিন্ট সংস্করণ

সমু সাহা

চঞ্চল চৌধুরী

চঞ্চল চৌধুরী

চঞ্চল চৌধুরী। অভিনেতা। সম্প্রতি তিনি ইউটিউব চ্যানেল প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি ব্যস্ত আছেন চলচ্চিত্র অভিনয়ে। সমসাময়িক ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হলো তার সঙ্গে-

ইউটিউব চ্যানেল প্রকাশের পেছনে কোন বিশেষ ভাবনা কাজ করেছে?

আমার কাজগুলো যেন একটি প্লাটফর্মে সংরক্ষণ করতে পারি সে জন্য এ মাধ্যমকে বেছে নেওয়া। কিন্তু সব কাজ তো ইউটিউবে প্রকাশ করতে পারব না। কারণ অনলাইন স্বত্বের বিষয় রয়েছে। তবুও চেষ্টা করছি আমার গাওয়া কিছু গান ও অভিনীত নাটক এই চ্যানেলে প্রকাশ করতে। এর আগে কয়েকটি গান বিচ্ছিন্নভাবে ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ পেয়েছে। তবে নিজের চ্যানেলে গানসহ ব্যক্তিগত ভালো ভালো কনটেন্ট পর্যায়ক্রমে প্রকাশ করব।

ব্যক্তিগত কাজের বাইরে কোনো কনটেন্ট কি প্রকাশ পাবে?

সে ধরনের পরিকল্পনা নেই। ব্যবসার জন্য ইউটিউব চ্যানেল খুলিনি।

'পুরোনো সেই দিনের কথা' গানে কণ্ঠ দিলেন...

ইফতেখার আহমেদ ফাহমীর একটি নাটকে অনেক আগে এ গানে কণ্ঠ দিয়েছিলাম। ফুয়াদের কম্পোজিশন করা এর অডিও ভার্সন আমার কাছে সংরক্ষিত ছিল। সম্প্রতি এটি আমার ইউটিউব চ্যানেলে ভিজ্যুয়াল আকারে প্রকাশ করি। ইউটিউব চ্যানেলে বেশিরভাগ গানের ভিজ্যুয়াল নিজেই করি।

আপনার অভিনীত দুটি সিনেমার কাজ শেষ হয়েছে?

গিয়াসউদ্দিন সেলিমের 'পাপপুণ্য' এবং মেজবাউর রহমান সুমনের 'হাওয়া' ছবির শুটিং শেষ। ডাবিংও হয়েছে। এ দুটি সিনেমায় দর্শক ভালো কিছু উপভোগ করতে পারবেন বলেই কাজ করতে উৎসাহ পেয়েছি।

সিনেমার জন্য ইদানীং নাটকে আপনাকে কম দেখা যাচ্ছে।

ব্যক্তিগতভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে কাজ করার নীতিতে বিশ্বাসী নই। সবসময় আমার কাজের একটা লিমিট আছে। কত দিন পর্যন্ত অভিনয় করলে, কতদিন স্ট্ক্রিনে থাকা যাবে তা আমার মাথায় থাকে। প্রতিদিন সব চ্যানেলে নিজেকে দেখানোর ইচ্ছা নেই। মানহীন কনটেন্টে যুক্ত হতে একদমই চাই না। শুধু নিজের রুচির সঙ্গে যে কাজগুলো যায়, তাই করি।