তৌকীর-বিপাশার সুখে থাকার মূলমন্ত্র

প্রকাশ: ০৬ এপ্রিল ২০২০     আপডেট: ০৬ এপ্রিল ২০২০   

বিনোদন প্রতিবেদক

তৌকীর আহমেদ ও বিপাশা হায়াৎ

তৌকীর আহমেদ ও বিপাশা হায়াৎ

তারকা দম্পতিদের সংসার টেকেনা- এমন একটা ধারণা সাধারন মানুষদের মনে অনেক আগে থেকেই প্রতিষ্ঠিত। তাই কোনো তারকা বিয়ে করছেন খবর শুনলে তারা দুষ্টুমি করে আজকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টিপ্পনি কাটেন কবে তারকাদের বিচ্ছেদ হবে বলে!

তবে সব কিছুতেই ব্যতিক্রম থাকে। এখানেও আছে। আমাদের শোবিজে অনেক তারকা যুগল রয়েছেন যারা ভালোবেসে বিয়ে করে সুখের দাম্পত্য রচনা করে চলেছেন বছরের পর বছর। তৌকির-বিপাশা সেই দম্পতিদের অন্যতম।

তাদের দাম্পত্ত জীবনের সুখে থাকার মূলমন্ত্রের কথা জানালেন তৌকীর আহমেদ। তিনি বলেন,দাম্পত্য জীবনে মান-অভিমান পর্ব থাকবেই। কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারবে না যে, তাদের কখনও কোনো বিষয়ে দ্বিমত কিংবা ঝগড়া হবে না। বিপাশা এবং আমার সম্পর্কের শুরু বন্ধুত্ব থেকে। এখনও আমরা একে অপরের ভালো বন্ধু, এমনকি আমাদের সন্তানদের কাছেও আমরা ভালো বন্ধু। তারপরও দীর্ঘ দাম্পত্য জীবনে কোনো বিষয়ে মনোমালিন্য হয়নি- এটা কখনও বলব না। হয়েছে, আবার মিটেও গেছে। ঘর-সংসারের বাইরে আমাদের অভিনয় জীবন, নির্মাণ পরিকল্পনা ও অন্যান্য কাজকর্ম করি। যা নিয়ে কখনও একমত হয়েছি, কখনও মতভেদও হয়েছে। আবার ছোটখাটো বিষয় নিয়ে কখনও কখনও মান-অভিমান হয়েছে। কে আগে বা পরে কার মান ভাঙিয়েছি- এটা বড় বিষয় নয়।

২০০০ সালের ২৩ জুলাই ভালোবেসে পারিবারিকভাবে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন তারা। দেখতে দেখতে ১৬ বছর পেরিয়ে গেল তাদের দাম্পত্য জীবন। দীর্ঘদিনের এই সংসার যাপনে তারা দুই সন্তানের জনক-জননী।

তৌকীর আহমেদ বলেন, অনেকটা পথ একসঙ্গে পাড়ি দেব- এই ছিল প্রতিশ্রুতি। যে জন্য একে অপরকে বোঝার চেষ্টা করেছি সবসময়। বন্ধু বলেই আমরা নিজেদের সম্পর্কে ভালো জানি, একে অপরের পাশে থাকি। জীবনকে গুছিয়ে নেওয়া, সুন্দরভাবে সংসার ধর্ম পালন করে যাওয়ার এটাই মূল মন্ত্র। 

তৌকীর আহমেদের এ কথার সঙ্গে একই সুরে কথা বলেছেন বিপাশা হায়াত নিজেও। তার কথায়, বন্ধুদের মাঝে যেমন মান-অভিমান হয়, তেমনি সংসার জীবনেও স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কখনও কখনও খুনসুটি, রাগ, মান-অভিমান চলে। আবার তা মিটেও যায় একে অপরের বোঝাপড়ায়। আমদের দাম্পত্য জীবন তার বাইরে নয়।